Thursday, June 21, 2018

পোকামাকড়ের থাকাথাকি।

কেবল বালকবেলায় না, এখনও, কখনও-কখনও পোকাকে 'পুকা' বলে হাসির পাত্র হই। তো, বালকবেলায় প্রায়শ এটা মাথায় ঘুরপাক খেত 'পুকার' জন্য একটা ঘর-টর করা যায় না?
সেই বালকবেলার হাস্যকর কর্মকান্ড ভাবনাকে বাস্তবে করে দেখিয়েছেন fakruddin shahariar (https://www.facebook.com/fakruddin.shahariar), এই বাপ-বেটা মিলে পোকামাকড়ের জন্য হোটেল খুলেছেন। 'বাগ হোটেল'।

অবশ্য পোকামাকড়ের সঙ্গে লেনদেনের বিষয়টা গোপন রেখেছেন, বাপ-বেটা দুজনেই :)

Sunday, June 10, 2018

হুজুগে বঙ্গাল!

আমাদের মহিলা ক্রিকেট দলের অধিনায়ক সালমাকে নিয়ে পাকিস্তানি মিডিয়ায় যে কুৎসিত রসিকতা করা হয়েছিল তা অনেকেই হয়তো বিস্মৃত হয়েছেন। সেই কুৎসিত রসিকতার নামে যা করা হয়েছিল তা অমার্জনীয় এক অপরাধ! কারণ রসিকতাটা কেবল খেলা নিয়েই ছিল না সালমাকে অসুন্দর রূপে উপস্থাপন করে বিস্তর হাসাহাসি হয়েছিল। আজ আমি চোখ বন্ধ করলে স্পষ্ট দেখতে পাই এই মরদুদরা আজ হাসতে ভুলে যায়, ইয়েতে মাখামাখি হয়ে।

আজ সালমাদের ছোড়া জুতা দিগবিদিক কোথায় কোথায় পড়ছে তা ঠাউর করা মুশকিল। দু-একটা যে আমাদের গায়েও লাগেনি তা জোর দিয়ে বলা মুশকিল। আজকের এক পত্রিকায় পড়ছিলাম, “…সাকিব আল হাসানরা এশিয়া কাপের ফাইনালে খেললে ক্রিকেট উত্তাপে কাঁপে সারা দেশ। …আজও কি তেমন কিছু ঘটছে এ দেশে? বাসে বা অফিসে তর্কে আলোচনায় কি আজ সত্যিই আছেন সালমারা?...

এই ক্রীড়া প্রতিবেদক এখনও পুরোপুরি রোবট হয়ে ঘসে-ঘসে চোখের স্বপ্ন মুছে ফেলেননি বলেই হয়তো অসাধারণ এই লেখা দিয়ে শুরু করেছিলেন, সাধু-সাধু কিন্তু তিনি যে পত্রিকায় এটা লিখেছেন সেই পত্রিকায় এই খবরটা কিন্তু প্রথম পাতায় জায়গা করে উঠতে পারেনি। ছাপা হয়েছে খেলার পাতায়। অথচ এই পত্রিকাতেই পর-পর দুদিন ছাপা হয়েছিল ঢাউস আকারের বহুতল ভবনের ছবি। ঘটনা কী! দুই ‘ছাগ-বেকুব’ একটা ভবন রাঙিয়েছে আর্জেন্টিনার পতাকার রঙে আরেকটা ব্রাজিলের।
আহা কান্ড, আমার মত বেকুব পাঠককে খেলা কখন শুরু হবে এটা জানাবার তকলিফও এরা করেননি! 
এখন প্রবল আশা, সহসাই এই পত্রিকার সর্দার টাইপ উপ-সর্দার সালমাদের সঙ্গে ফটোসেশন করবেন, বিকশিত দন্তসহ।

আমাদের দেশের মিডিয়া চামচে করে কাচা গু খাওয়ালে আমরা পাঠক তাই খাব। মিডিয়া বলে কথা! এই মিডিয়াই উস্কে দেয় কোথাও কোন-এক ‘ছাগ-বেকুব’ এক কিলোমিটার লম্বা আর্জেন্টিনার পতাকা সেলাই মেশিনের উপর বসে প্রসব করেছে তো কোথাও ব্রাজিলের সোয়া কিলোমিটারর লম্বা পতাকা। এই মিডিয়াই ঘটা করে লিখে উস্কে দেয় ঈদের দেড় লাখ টাকা দামের লেহেঙ্গা, ঘটা করে শিরোনাম করে, শুরুতেই এলো ‘পদ্মাবতী’! ফ্যাশনের পাতার নামে বিস্তর ‘গু-কা’র সুলুক-সন্ধান।
ছবি ঋণ: www.banglatribune.com
মেয়েদের এশিয়া কাপে আজই আমাদের মেয়েরা ছয়বারের চ্যাম্পিয়ন ভারতকে হারিয়েছে অথচ এই লেখাটা যখন লিখছি তখন প্রধান এক ইলেকট্রনিক মিডিয়ার প্রধান দ্বিতীয় তৃতীয় খবরে জায়গা করে নিতে ব্যর্থ হল এই মুঠো-স্বপ্ন…।
...
অাপডেট: (২০.০৬.১৮)
আজ প্রধানমন্ত্রী এই মেয়েদেরকে ডেকেছেন উৎসাহ-পুরস্কার দেওয়ার জন্য। অার মেয়েরা প্র্যাকটিস করতে যায় লক্করঝক্কর বাসে...।

ছবি এবং তথ্য ঋণ: www.thedailystar.net 



Saturday, June 2, 2018

ক্রসফায়ার বনাম বন্দুকযুদ্ধ।

দেশ এখন যুদ্ধাবস্থায় আছে। তুমুল 'বন্দুকযুদ্ধ' (চালু মিডিয়া সম্ভবত ক্রসফায়ার বলে-বলে ক্লান্ত হয়ে পড়েছে তাই এই নতুন সংযোজন চালু করেছে।) চলছে! বন্দুকের গুলি সবগুলোই একের-পর-এক ক্রস করছে। এ এক ‘অমায়িক ক্রসফায়ার’ - যাদের গা ছুঁয়ে যাচ্ছে তারা বেজায় খুশি বেঁচে যাওয়ার আনন্দে! কিন্তু ‘খোদা-না-খাস্তা’ কোনও একটা গুলি যদি ক্রস না-করে সোজা খুশিমুখের কারও দিকে চলে এলে তো বিপদ, মহাবিপদ! মরলে কী আর কারও বাঁচার যো আছে রে, পাগল! তাই কোদালের বদলে ‘বদিস্ত্র বা বদাস্ত্র’ দিয়ে ট্রেন্চ খোঁড়াটা অতি জরুরি। বদিকে বাঁচাবার জন্য অন্যত্র দৃষ্টি ফেরানোটা জরুরি, খুব জরুরি!
...
ক্রসফায়ার না (যেখানে ডান্ডাবেড়ি নিয়েও লোকজন গুলি ক্রস করত [১] [২]), একরাম 'বন্দুকযুদ্ধে' যুদ্ধ করে, হত্যা হয়ে সরকারকে বেকায়দা ফেলার চেষ্টা করেছেন। এবং মিডিয়ার তথ্য ভান্ডারের উৎসে খানিকটা ব্যাঘাত ঘটিয়েছেন। এ তো হওয়ারই ছিল! আমরা এই সমস্ত হত্যার মিছিল নিয়ে কী উল্লসিত! চা খেতে খেতে একজন অন্যজনকে জিজ্ঞেস করছি, ‘আজ কয়টা রে’? কারণ মাদকব্যবসায়ি মারা যাচ্ছে এই মাদকে আমরা নিজেরাই বুঁদ!
তার উপর আমাদের চেয়ে তথ্য-জ্ঞানে এগিয়ে থাকা গোলাম সারওয়ারের মত বয়স্ক একজন মিডিয়াবাজ মানুষের এই প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে যখন তেলতেলে চেহারার তেল গড়িয়ে পড়ে তখন দিগম্বর এই মানুষটাকে দেখে আমরা চোখ ফিরিয়ে নেই না। আনন্দের সঙ্গে তাকিয়ে তাকিয়ে দেখি।

একরামকে হত্যা করার অডিওটা শোনার পর কেবলই মনে হচ্ছে যে সমস্ত মানুষ এই সমস্ত হত্যাযজ্ঞের সঙ্গে জড়িত, রোজাভঙ্গে প্রথম ফোঁটায় চুমুক দেওয়ার পূর্বে, ছুটতে ছুটতে নামাজে দাঁড়িয়ে, শখের বশে বিরিয়ানি রান্না করতে করতে, বেনি দোলানো মেয়েদেরকে হলুদ সন্ধ্যায় বেড়াতে নিয়ে গিয়ে বা শিল্পসাহিত্যের ভুবনে দাপিয়ে বেড়িয়ে এই ভাবনা মাথায় এলো যে একরামের বিষয়ে ভুল হয়েছে। ভুল হতেই পারে, এ তো আর চিত্র-বিচিত্র না। এই ভুল শোধরানোর উপায়ও কঠিন কিছু না। খুব সিম্পল।
একরামকে ফিরিয়ে দিলেই হয়…[৩]

সহায়ক সূত্র
১. ডান্ডাবেড়ি নিয়ে ক্রসফায়ার: http://www.ali-mahmed.com/2009/10/blog-post_03.html
২. ক্রসফায়ার এক মহা আবিষ্কারhttp://www.ali-mahmed.com/2008/07/blog-post_29.html
৩. মৃত্যুদন্ড...http://www.ali-mahmed.com/2009/06/blog-post_07.html