Tuesday, July 10, 2018

ইয়ে অমলিন!

গতকাল আমাদের মেয়েরা ক্রিকেটে স্বাগতিক হল্যান্ডকে একেবারে লম্বা করে দিয়েছে- ৭ উইকেটে হারিয়ে!

একবার একজন আমাকে বলেছিলেন কোন দেশ সম্বন্ধে জানতে হলে তার এয়ারপোর্ট এবং পত্রিকার নমুনা দেখবে। এয়ারপোর্টের বিষয়টা বুঝেছিলাম কিন্তু পত্রিকা কেন জরুরি এটা হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছি। উদাহরণের জন্য আমি একটি চালু দৈনিক পত্রিকাকে বেছে নিচ্ছি। সবাই নাকি এক পা এগিয়ে থাকে এই পত্রিকা থাকে এক পা এক আঙ্গুল এগিয়ে। অভিনন্দন, বাড়তি এক আঙ্গুলের জন্য।

গতকালের সালমাদের যে অর্জন এর ধারাবাহিকতা আজকের না। ছয়বারের চ্যাম্পিয়ন ভারতকে নাকের পানি চোখের পানি একাকার করে দেওয়া। এবং পাকিস্তানি মিডিয়ার মুখে ইয়ে লাগানো জুতা ছুঁড়ে মারা। আমি পূর্বের লেখায়ও লিখেছিলাম পাকিস্তানি মিডিয়া আমাদের মেয়েদেরকে নিয়ে বিশেষ করে চেহারা নিয়ে যে অসভ্য, ইতরের আচরণ করেছে তা ওই ভিডিওটা দেখলে খানিকটা আঁচ করা যাবে [১]

পত্রিকা ভাইরে, আমরা বিশ্ব-ব্যালোল, বিশ্বকাপ, টংকা ওরফে টাকা এইসব খানিকটা বুঝি। বিশ্বকাপের খবর কাভার করার জন্য চার জন দুঁদে সাংবাদিক পাঠিয়েছেন, উত্তম। তাই বলে অফিস তো আর খালি হয়ে গেল না। ‘বিশ্বকাপ নিয়ে সবাই যখন ছাদে উড়ায় ঘুড়ি টুলে বসে যে চিবায় ন্যাতানো মুড়ি’, অন্তত তাকে ‘দম্পিউটারের’ সামনে বসিয়ে দিলেও তো হয়।

আচ্ছা এই সব ভারী-ভারী কথা নাহয় থাকুক হালকা চালের কিছু কথা বলা যাক। একটা কুইজ। প্রথম পৃষ্ঠা-শেষ পৃষ্টায় আমার মত বেকুব পাঠক আশা করি না যে এখানে সালমাদের বিজয়ের ছবি দূরের কথা এক কলাম কোন তথ্য থাকবে।
স্ক্রিণশট ঋণ: প্রথম আলো ৯ জুলাই ২০১৮
তাই এখানে চার পৃষ্ঠায় সালমাদের নিয়ে কোথায় লেখা হয়েছে এটা বের করতে পারলে পুরস্কার পাওয়া যাবে ফিফার বাংলাদেশ শাখার প্রেসিডেন্টের পদছাপসহ একটা ফুটবল। এই ফুটবলের সংখ্যা একেবারেই সীমিত।

সহায়ক সূত্র
পাকিস্তানি মিডিয়া: http://www.ali-mahmed.com/2018/06/blog-post_10.html