Saturday, March 5, 2011

মাননীয় আদালত, ক্ষমতার অপব্যবহার করলেন!

ছবি ঋণ: কালের কন্ঠ
মহাস্থানগড় নিয়ে আদালত বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছেন। কিন্তু আমার প্রবল আগ্রহ ছিল যারা এর নাটের গুরু এদের কী শাস্তি দেয়া হয় সেটা দেখার জন্য।
নাটের গুরুদের তিনজন খোকন সরকার, সবুজ সরকার এবং সায়দুর রহমানকে দিনভর আদালতে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। কিন্তু এটা আমার বোধগম্য হয় না কেন এদেরকে আদালত থেকে বেরুতে দেয়া হলো, কেন আটকে রাখার ব্যবস্থা করা হলো না?

মহাস্থানগড় বিনষ্ট করা প্রসঙ্গ নিয়ে এক লেখার সূত্র ধরে আদালত সৈয়দ আবুল মকসুদকে যে ভাষায় তিরস্কার করেছেন তা নিয়ে আমার প্রচন্ড আপত্তি আছে। ৩ মার্চ কালের কন্ঠ থেকে যা জানা যাচ্ছে:
"একজন আইনজীবী বলেন, 'তিনি (সৈয়দ আবুল মকসুদ) একজন বুদ্ধিজীবী'। তখন আদালত বলেন, 'কিসের বুদ্ধিজীবী, তিনি একজন নির্বোধ'।
অপর এক আইনজীবী বলেন, 'তিনি জ্ঞানপাপী'। তখন আদালত বলেন, 'কিসের জ্ঞানপাপী, তিনি নির্বোধ'। [১] 

আমি মনে করি, সৈয়দ আবুল মকসুদ আদালতে স্বেচ্ছায় যে বক্তব্য দিয়েছিলেন তার অনেক অংশ অহেতুক, অতিরঞ্জিত, মসজিদ ভাঙ্গলে আগুন জ্বলবে হেনতেন...! তিনি আরও বলেন, ...কোন মসজিদ সরিয়ে নেয়ার কোন উদাহরণ এই উপমহাদেশে নাই। জনাব মকসুদের জানায় খানিকটা ভুল আছে। পাকিস্তানের মত কট্টর দেশেও মসজিদ বুলডজার দিয়ে গুড়িয়ে দেয়ার উদাহরণ আছে।

যাই হোক, আদালতের এই বক্তব্য নিয়েও আমার প্রচন্ড আপত্তি আছে, আদালত যেটা বলছিলেন সৈয়দ মকসুদ একজন নির্বোধ। একজন মানুষের নির্দিষ্ট কোন কাজকে নির্বোধসুলভ বলা চলে, মানুষটাকে না। দায়িত্বশীল একজন মানুষ অন্য একজনকে নির্বোধ বলতে পারেন না। বিচারক তো নৈবচ নৈবচ। কারণ একজন মানুষ স্রেফ নির্বোধ হলে আর যাই হোক তিনি লেখক হবেন না, হলে তাঁর লেখা তিনি নিজেই পড়বেন অন্যরা পড়ার আগ্রহ বোধ করবেন না। সলাজে বলি, আমি সৈয়দ মকসুদের লেখার একজন পাঠক। সহজ হিসাব, মানুষটা স্রেফ নির্বোধ হলে আমি তাঁর লেখা পাঠ করার আগ্রহ বোধ করতাম না। [২] 

বলা হয়ে থাকে আদালত অন্ধ, তাঁকে হাতে ধরে ধরে সব দেখাতে হয় এটা এই, ওটা ওই। আদালতের বিপুল ক্ষমতা কিন্তু প্রচুর সীমাবদ্ধতাও আছে। আদালত আবেগ নিয়ে কাজ করতে আগ্রহ বোধ করেন না, প্রমাণ এবং অকাট্য যুক্তিই ভরসা। সৈয়দ মকসুদ কি কি অপরাধ করেছেন এখানে সেটাই বিবেচ্য বিষয় হওয়া সমীচীন ছিল কিন্তু আদালত এখানে নিয়ে এসেছেন অপ্রাসঙ্গিক বিষয় যেমন টক শো, টিআইবি [৩], টাউট-বাটপার-দালাল, ঘুষ ইত্যাদি। আদালতের কাছে আমার প্রশ্ন, সৈয়দ মকসুদের এই মামলার সঙ্গে এই সব বিষয়ের যোগসূত্র কী!

আর সৈয়দ মকসুদ, আপনার আদালতের চোখে চোখ রাখার সাহস না-থাকলে এই নিয়ে জ্বালাময়ী ভাষণ দিতে গেলেন কেন! মাহমুদুর রহমানের মত সাহস আপনার নাই এটা কী আপনাকে মনে করিয়ে দেব?
আদালত, আমি বিষাদের সঙ্গে এও বলি, আপনারা বিপুল ক্ষমতার অপব্যবহার করলেন, যেমন অন্যায়টা হয়েছিল মাহমুদুর রহমানের বেলায় [৪]! আফসোস, বড়ই আফসোস! আদালত লেজারগান দিয়ে চড়ুই পাখি শিকার করার চেষ্টা করলেন‍!

সহায়ক সূত্র:
১. কালের কন্ঠ: http://www.dailykalerkantho.com/epaper/?archiev=yes&arch_date=03-03-2011
২. সৈয়দ মকসুদ: http://www.ali-mahmed.com/2011/02/blog-post_09.html
৩. টিআইবি বনাম আদালত: http://www.ali-mahmed.com/2011/01/blog-post_31.html
৪. মাহমুদুর রহমান: http://www.ali-mahmed.com/2011/02/blog-post_24.html

No comments: