Sunday, July 21, 2019

বেপারি!

লেখক: Rumi Ahmed

"মগবাজারে বাসা | আশিউর্ধ ভদ্রলোক মাগরেব নামাজ পড়ে জায়নামাজে বসে ওজিফা পড়ছেন। এই অবস্থায়ই তার স্ট্রোক হলো! খুব গরম লাগলো, খারাপ ফিল করলেন, মুখের কথা স্লার্ড হয়ে গেলো। তাঁকে বিছানায় নিয়ে শুইয়ে দেয়া হলো। নিচের ফ্ল্যাটের এক ডাক্তার সাহেবকে ডেকে আনা হলো। উনিও বললেন, স্ট্রোক হচ্ছে । এখন কোথায় তাকে নিয়ে যাবে তার বৃদ্ধা স্ত্রী? ছেলে মেয়েরা সব থাকে আমেরিকাতে! কি করবেন কোথায় নিয়ে যাবেন, কিভাবে নিয়ে যাবেন? এম্বুলেন্স লাগবে স্ট্রেচার লাগবে। স্ট্রোক হলে তিন ঘন্টার মধ্যে একটা ওষুধ দেয়া গেলে একধরণের স্ট্রোক ভালো হয়ে যায়! ঢাকা শহরে তো পয়েন্ট-এ থেকে পয়েন্ট-বি তে যাওয়া সারাদিনের ব্যাপার। আত্মীয়রা এখন্ ছেলেদের ফোন করেছে। ছেলে আমেরিকায় বসে এখানে-সেখানে কল করে এম্বুলেন্স ম্যানেজ করলো। কোথায় নিয়ে যাবে এম্বুলেন্স? ইউনাইটেড-এর অনেক নাম শুনেছে এরা, সুন্দর কর্পোরেট হাসপাতাল, ভালো জায়গায়। এম্বুলেন্স বাড়িতে এসে নিয়ে যায়। তো, ইউনাইটেড হাসপাতালে ইমার্জেন্সি ডিপার্টমেন্টে নিয়ে যেতে তিন থেকে চার ঘন্টার মতো লেগে গেল।

ভদ্রলোকের বাসায় থাকা অবস্থায় জ্ঞান ছিল, কথা বলতে চেষ্টা করছিলেন। আস্তে-আস্তে নিস্তেজ হয়ে গেলেন। যখন ইউনাইটেড-এ গেলেন তখন ভদ্রলোক ডিপ কোমায়!
ভদ্রলোকের আত্মীয়রা বাইরে অপেক্ষা করছেন, মাঝ খানে জানা গেলো সিটি স্ক্যান করা হয়েছে - ম্যাসিভ ব্যাসাল গ্যাঙ্গলিয়া ব্লিড উইথ ইন্ট্রাভেন্ট্রিকুলার এক্সটেনশন আর মিডলাইন শিফট! পরিবারকে জানানো হলো নিউরোসার্জন সাহেব দেখেছেন ওনাকে। কাল সকালে অপারেশন করবেন।

আমি পরিবারের সদস্যদের অনুরোধ করলাম সিটি স্ক্যান এর ছবি ফোনে তুলে আমাকে পাঠাতে  আমি যাতে বুঝতে পারি কি অবস্হা এবং ধারণা করতে পারি কি অপারেশন এর কথা ভাবছেন নিউরোসার্জন সাহেব! কিন্তু সিটি স্ক্যান এর ছবি তো দূরের কথা, পরিবারের সদস্যরা, পুত্রবধূ (যে ঢাকায় ছিল ওই সময়) ও তার মা, ওরা ভিতরে ঢুকতেই পারছেন না ।

পরে রাত বারোটার পরে পুত্রবধুর বাবা, উনি বর্তমানে বাংলাদেশ সরকারের একটা প্রচন্ড শক্তিশালী মন্ত্রণালয়-এর মন্ত্রী, উনি এলেন এবং ওনার কারণে সিটি স্ক্যানের ছবি আমরা হাতে পেলাম । আমি স্কোরিং করলাম - ICH Score =6. আমি ভদ্রলোকের ছেলেকে স্কোরিংটা দেখলাম। ICH Score=6 হলে ৩০ দিনের মধ্যে মৃত্যুর সম্ভাবনা ১০০%! 

আমি নিজে আমেরিকান বোর্ড সার্টিফাইড নিউরোইনটেনসিভিষ্ট! ব্রেইন হেমোরেজ স্ট্রোক ইত্যাদি আমি করি রুটি রুজির জন্য! এধরণের ব্লিডিং নিয়ে কোমার রুগীকে নিয়ে আসলে জবাব দিয়ে দেই। অপারেশনের কথা চিন্তাও করি না। স্ক্যান-এর ছবি এবং রুগীর বর্তমান অবস্হা আমাদের হাসপাতালের আমার নিউরোসার্জন কলিগকে টেক্সট করলাম আর জিজ্ঞেস করলাম, সার্জারির কোনো স্কোপ আছে কিনা এবং সে হলে এই অপারেশনটা করতো কিনা? ও অনেক সময় নিয়ে স্ক্যান দেখে আমাকে টেক্সট ব্যাক করলো, 'হেল নো!' । Hopelessly Poor Prognosis, no role of any surgical intervention!

কিন্তু ইউনাইটেড এর নিউরসার্জন সাহেব গোঁ ধরে বসে আছেন। তিনি পেসেন্ট ছাড়বেন না। ওয়েইটিং রুমে লোক পাঠানো হলো কনসেন্ট এর জন্য! রুগীর আত্মীয়রা বললো আমরা অপারেশনের ব্যাপারে এখনো সিদ্ধান্ত নেই নাই।চাপ বাড়তে থাকলো কনসেন্ট দেয়ার জন্য। এমন কি মন্ত্রী সাহেবও সার্জন সাহেবের সঙ্গে কথা বলতে পারছেন না এমন এক পর্যায়ে মন্ত্রীর পি.এস সার্জনকে পেলেন কিন্তু সার্জন সাহেব ফোন রেখে দিলেন।

বিএসএমএমইউ এর নিউরসার্জন ভিসির সাথে যোগাযোগ করা হলো উনি বললেন কিছুদিন আগে আর একটি রুগীর ব্যাপারে কথা বলতে গেলে ইউনাইটেড ওনাকে ওখানে ঢুকতে দেয়নি! উনি বিএসএমএমইউতে বেড ম্যানেজ করে দিলেন এবং রুগীকে ট্র্যান্সফার করে নিয়ে আসতে বললেন |
রুগীর আত্মীয়রা ট্র্যান্সফার-এর কথা বলে মনে হয় মৌচাকে ঢিল ছুড়লো। নিউরোসার্জন এবং ইউনাইটেড কর্তৃপক্ষ তেলেবেগুনে জ্বলে উঠলো। ওরা রুগী ছাড়বে না অপারেশন করবেই। এবং রুগীকে ট্র্যান্সফার করতে চাওয়ার অপরাধে রুগীর আত্মীয়দের ওয়েইটিং রুম থেকে বের করে দিলো!

এই কনফ্লিক্ট-এর এক পর্যায়ে মন্ত্রী সাহেব গুলশান থানার এস, পি আর ও, সি পাঠালেন ওরা ফোর্স নিয়ে হাসপাতালে ঢুকলো রুগীকে উদ্ধার করে বিএসএমএমইউতে নিয়ে আসতে। কিন্তু ইউনাইটেড বাদ সাধলো আবার। ওরা রুগী ট্র্যান্সফার-এর জন্য এম্বুলেন্স ভেন্টিলেটর দেবে না। রুগীর আরেক আত্মীয় আছেন আরেক বড় কর্পোরেট হাসপাতালের এনেস্থেটিস্ট। ওনার মাধ্যমে ভেন্টিলেটর-এর ব্যবস্থা হলো। রুগী অবশেষে বিএসএমএমইউতে গেলো। বিএসএমএমইউ-এর প্রধান নিউরোসার্জন ডাঃ কনক কান্তি বড়ুয়া স্ক্যান দেখে বললেন অপরেশনের কোন সুযোগ নেই।
বিএসএমএমইউ-এর আইসিইউর প্রচন্ড করিৎকর্মা কিছু তরুণ চিকিৎসক দিনরাত খেটে রুগীকে বাঁচিয়ে রাখলো তার দুই ছেলে আমেরিকা থেকে দেশে পৌঁছে পর্যন্ত। ছেলেরা ফেরার কিছুক্ষন পরেই ভদ্রলোক চলে গেলেন জীবন ছেড়ে।
...
এই রুগীর প্রচন্ড প্রভাবশালী কিছু আত্মীয় ছিল কিন্তু সেইসব মানুষদের কথা ভেবে দেখুন যাদের প্রভাবশালী আত্মীয় নেই! যাদের পরিবারে সঠিক উপদেশ দেয়ার মতো ডাক্তার নেই!
নিউরোসার্জন সাহেব কি জানেন না যে এই রুগী বাঁচবে না? তিনি অবশ্যই জানতেন। না জানার কোনো কারণ নাই! 
তাহলে? রুগীর পরিবারের কিন্তু ধারণা হবে পাড়ার মাস্তানের কাছে নুতন কনস্ট্রাকশনের প্রজেক্ট যা, এই ধরণের কিছু ডাক্তারের কাছে একটা রুগী তা! উপার্জন! ক্যাশ পয়সা!

এই নিউরোসার্জন ভদ্রলোক এই ধরণের অপ্রয়োজনীয় সার্জারী আগেও নিশ্চয় করেছেন এবং ভবিষ্যতেও করবেন। এই রুগীর পরিবারকে বলি করে যদি রেখে দিতে পারতেন, হেনোতেনো একটি অপারেশন করতেন জাষ্ট করার জন্য। তারপর আই সি ইউ তে-ভেন্ট দিয়ে রেখে দিতেন এক-দু হপ্তা। ডেইলি চার্জ লাখ খানেকের উপরে! পয়সা ওয়ালা পার্টি। ছেলেরা বিদেশে থাকে। দুসপ্তা পরে ব্রেইন-ডেড মানুষটাকে সিঙ্গাপুর নিয়ে যেতে বলতেন! রুগীর পরিবারের মন মানে না। সমর্থ না থাকলেও তারা ধার কর্জ করে কোটি টাকা খরচ করে এয়ার এম্বুলেন্স করে সিঙ্গাপুর নিয়ে যেত!
আহা, এতো সুন্দর হাসপাতাল মেইনটেইন করতে পয়সা লাগে না? আর নিউরসার্জন সাহেবেরও তো মাঝে-মধ্যে দেশ বিদেশ ঘোরার শখ হয়, হয় না?

আমার ধারণা এই ঘটনাটা যতটা অর্থনৈতিক ঠিক ততটুকুই বাংলাদেশের নিউরোসার্জারি কালচার আর ট্রেইনিং-এর 
ফল! বাংলাদেশে রুগীর পার্টি ব্রেইন হেমোরেজ রুগীর অপারেশন চায়! এক সার্জন না-বললে এরা আরেক সার্জন এর কাছে যাবে ! 
...

উপরের রুগীর চিকিৎসায় ইউনাইটেড হাসপাতালে যতটা ভুল ও অন্যায় করা হয়েছে এই একই রুগীকে বিএসএমএমইউ-এর নিউরোসার্জন ও আই সি ইউর চিকিৎসকরা ততটাই আন্তরিকতার সাথে সঠিক ও কোম্প্যাসনেট চিকিৎসা দিয়েছে!
কিন্তু যতদিন ইউনাইটেড হাসপাতালে এর ঘটনার মতো অন্যায় চলতে থাকবে রুগীর সাথে, বিএসএমএমইউ এর চিকিৎসকদের মতো শত আন্তরিকতা স্বত্বেও দিন-দিন ডাক্তার আর রুগীর মধ্যে দূরত্ব বাড়তে থাকবে!"