Saturday, January 7, 2012

তিতাস, ঘরের মেয়ে ঘরে ফিরে যাচ্ছে

এই ছবিটির সূত্র: http://tinyurl.com/6lv3f57
­­ট্রানজিটের নামে তিতাসের মাঝখানে বাঁধ-রাস্তা তীব্র ক্ষোভের জন্ম দিয়েছিল দেশবাসীর মধ্যে, আমার মধ্যে [১] 
এবং আমরা বিস্ময়ের সঙ্গে লক্ষ করেছি, ৭২৬ মেগাওয়াট বিদ্যুতের মধ্যে বাংলাদেশ ১০০ মেগাওয়াট পাবে বলে আশা করা হয়েছিল কিন্তু বাংলাদেশ ১ ওয়াট বিদ্যুতও পাচ্ছে না তাহলে আমরা এতো যন্ত্রণা করতে গেলাম কেন?


ট্রানজিটের জন্য বিকল্প রাস্তা থাকার পরও নদীর উপর এই অনাচার করায় আমাদের মধ্যে জন্ম নিয়েছে তীব্র রোষ! 

এ ক্ষোভ-বেদনা কেবল দেশের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকেনি। দেশ ছাড়িয়ে প্রবাসেও ছড়িয়ে পড়েছে। হাজার-হাজার মাইল দূরে থেকেও এই সব প্রবাসী মানুষদের মমতা দেখে বুকের ভেতর থেকে এক অজানা কষ্ট পাক খেয়ে উঠে!

পরের লেখায় আমি বিশদ বলেছিলাম [২] যে, আমরা মূল থেকে খানিকটা সরে গেছি। ট্রানজিটের জন্য বিকল্প চলনসই সড়ক কিন্তু আছে। ঝামেলা হয়েছে কেবল এই বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিপুলসব যন্ত্রপাতির কারণে!... খোঁজ রাখা প্রয়োজন এই বিদ্যুৎকেন্দ্রের জিনিসপত্র কবে নেওয়া শেষ হবে? কারণ বছরের-পর-বছর লাগিয়ে দিলে তো সমস্যা! নেওয়া শেষ হলে এবং সব ঠিক থাকলে তখন এই বাঁধ-সড়কের প্রয়োজন ফুরিয়ে যাওয়ার কথা।
যদি না...ত্রিপুরার আরেকটা বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রয়োজন হয়, যদি না আমাদের দেশের কোনো মাথামোটা আবারও নতুন করে জানালায় মাথা আটকে ফেলেন!

আজকের প্রথম আলো থেকে জানা যাচ্ছে [২], "...ভারী সব যন্ত্রপাতি ত্রিপুরায় চলে গেছে...১৭টি বৃহৎ কনটেইনার রয়েছে ..."।
অর্থাৎ এখনও নেওয়ার বাকী আছে ১৭টি বৃহৎ কনটেইনার।

'বিদ্যুৎকেন্দ্রের মালামাল নেয়া শেষ হলে...', এই বক্তব্যর পর, ব্রাক্ষণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসকের কাছে নতুন কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।
কিন্তু ভারতীয় পরিবহন সংস্থা এবিসি-এর প্রতিনিধি জনাব ফারুকের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। মূলত তিনিই এর দায়িত্বে আছেন। তিনি নিশ্চিত করেছেন, ইতিমধ্যে পালাটানা বিদ্যুৎকেন্দ্রের সমস্ত যন্ত্রপাতি নেয়া শেষ হয়েছে। মোদ্দা কথা, বিদ্যুৎকেন্দ্র সংক্রান্ত নেওয়ার মত কিছুই আর অবশিষ্ট নাই।
আরও জানা গেছে, চুক্তি অনুযায়ী হাতে অনেকটা সময় থাকলেও যেহেতু বিষয়টা নিয়ে জনমনে ক্ষোভ আছে তাই সিদ্ধান্ত হয়েছে তাঁরা অচিরেই এই বাঁধ-রাস্তা অপসারণ শুরু করবেন।
এবং এটা এক সপ্তাহের মধ্যেই শুরু করা হবে।

তাঁর কথামতে, আশুগঞ্জ থেকে আখাউড়া সীমান্ত পর্যন্ত এমন ১৫টি প্রতিবন্ধকতা আছে। একে একে সবগুলোই অপসারণ করা হবে। যেহেতু এই বিষয়টা নিয়ে আমাদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ-বেদনা-অবিশ্বাস কাজ করছে তাই আমি তাঁকে অনুরোধ করেছি কোড্ডা সেতুটাই (যেটার ছবি আমরা অনেকেই ব্যবহার করেছি) প্রথমে অপসারণ করার জন্য। যাতে করে আমাদের মধ্যে ক্ষোভের বাষ্পটা কমে আসে।

প্রথমে তিনি আমার এই আবদারে বিরক্ত হয়েছিলেন। তাঁর বিরক্তি আমি বুঝি, নিয়ম অনুযায়ী যেকোনো শেষ বা প্রথম প্রতিবন্ধকতা থেকে অপসারন শুরু করার কথা। কিন্তু দীর্ঘসময় তাঁর সঙ্গে কথা বলার পর তিনি আমাকে কথা দিয়েছেন এমনটাই হবে। তাঁর প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করি।

আমার প্রবল আশা, সব ঠিকঠাক থাকলে অচিরেই (সম্ভবত সব মিলিয়ে ১৫ দিন লাগবে) আমরা তিতাসকে দেখব সেই অগের মত।
সেই মেয়েটার মত যাকে ঈশ্বর গড়েছেন যত্ম নিয়ে। সেই মেয়েটা যে এটা ফেলে সেটা ফেলে! যে হাঁটলে নুপুরের শব্দ হয় না এ সত্য কিন্তু এক পা ফেললেই কলক্কল, কলকল-ছলছল করে জল বয়ে যায়!

তিতাস নদী নিয়ে পডকাস্ট করেছেন কৌশিক আহমেদ:
bdnews24: (http://blog.bdnews24.com/kowshik/58910) 
youtube: (http://www.youtube.com/watch?v=pBvYa4hEjz4)

সহায়ক সূত্র:
১. তিতাস একটি ...এর নাম: http://www.ali-mahmed.com/2011/12/blog-post_23.html
২. আমাদের কি দায় পড়েছে, দাদা?: http://www.ali-mahmed.com/2012/01/blog-post_06.html
৩. প্রথম আলো, (ছুটির দিনে): http://www.prothom-alo.com/detail/date/2012-01-07/news/214500

2 comments:

Anonymous said...

DoctorAijuddin Amarblog তাইলে বোজা গেলো এসব বাল ছাল আন্দুলন আর দেশ ভারত নিয়া গেলো কান্নাকাটি পুরাই ফালতু!! শীতকালে- শুকনা মৌসুমে - শুখা নদির মাজখান দিয়া টেমপোরারি রাস্তা কইরা জিনিষ নেয়া হইসিল! একন সেডা ভাংবে!
মন্তব্য টা ফেইসবুক থেকে টুকে দিলাম.আপনি কি দয়া করে এর ব্যখ্যা দিবেন?

।আলী মাহমেদ। ali mahmed । said...

এদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে এবং এটা সত্য, এ বছরের জুন পর্যন্ত লিখিত চুক্তি, ওরা যদি আরও ছয় মাস এই সব প্রতিবন্ধকতা অপসারণ না-করে আইনত কিচ্ছু বলার ছিল না!

আমি মনে করি, বিশ্বাসও করি, আমাদের সবার তীব্র ক্ষোভের প্রকাশ এদের সিদ্ধান্ত পরিবর্তনে বাধ্য করেছে। @Anonymous