Tuesday, December 29, 2009

মুক্তিযোদ্ধা আল মাহমুদ, নগ্নগাত্র ঢাকুন!

আচ্ছা, টিভি-মিডিয়ায় মেয়েদের নগ্ন বক্ষ, একজন নগ্ন মানুষ দেখালে সমস্যা কোথায়? ও আচ্ছা, ওটা অশ্লীলতা তাহলে!

আচ্ছা-আচ্ছা, তাহলে কবিবর আল মাহমুদকে দেখালে অশ্লীলতা হবে না? তিনি যে পোশাকেই শরীর মুড়িয়ে হাজির হন না কেন,
অন্যদের কথা জানি না আমার চোখে মানুষটার আর কিছুই যে গোপন থাকবে না।
আমার গা রিরি করবে। ঈশ্বর, এই কুৎসিত দৃশ্য আমি দেখতে চাই না। আমি লজ্জায়-ঘৃণায় চোখ বন্ধ করে ফেলব। আমার সন্তানদের টিভির কাছ থেকে সরিয়ে নেব, নইলে টিভি বন্ধ করে দেব। ক্ষণিকের জন্য দেখালে অন্তত হাত দিয়ে তাদের চোখ ঢেকে দেব।
বুঝলেন, অশ্লীলতা নিয়ে অনেক দিন ধরে বোঝার চেষ্টায় আছি। কোনটা যে শ্লীল, কোনটা যে অশ্লীল প্রায়শ গুলিয়ে ফেলি। কিন্তু এখানে এসে স্পষ্ট করে বলি এখন আর ধন্ধ নাই, ল্যাংটা আল মাহমুদকে দেখা সমীচীন না, এটা অশ্লীলতার পর্যায়ে পড়বে এতে কোন সন্দেহ নাই! আমার স্পষ্ট কথা, প্রকাশ্যে নারীর নগ্ন বুক দেখাতে সমস্যা বোধ করলে আল মাহমুদের বেলাও এটা হওয়া সমীচীন।

আজ আমরা জানলাম, ইনি কেবল কবিই নন এই দেশের বিরাট একজন মুক্তিযোদ্ধাও! জামায়েতে ইসলামীর জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা পরিষদ আল মাহমুদকে সম্মাননা দেয়ার সময় আল মাহমুদ বলেন, "'এ সম্মাননা গ্রহণকে নিজের জন্য ন্যায়সংগত ভেবেছি'। তিনি আয়োজকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, 'এ সংবর্ধনা ইতিহাসের অনিবার্য'।" (প্রথম আলো ২৮ ডিসেম্বর, ২০০৯)
হায়রে মুক্তিযুদ্ধ! অমি যখন বলি, 'মুক্তিযুদ্ধ এখন একটি বিক্রয়যোগ্য পণ্য' তখন লোকজন আমার উপর ঝাপিয়ে পড়েন। মুক্তিযুদ্ধ শিশুর হাতের মোয়া হয়ে গেছে, যে যেভাবে পারছে আমাদের হাতে ধরিয়ে দিচ্ছে। কখনও মোয়ায় গুড় মাখিয়ে, কখনও চিনি, কখনও-বা ধুতুরার বিষ! আমার বিমলানন্দে হাত বাড়িয়ে দেই।

মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন এই দেশের অনেক লেখক-কবিদের সম্বন্ধে যখন শুনতাম, তারা কলকাতার হোটেলে মদ-নারি নিয়ে ফুর্তি করে বেড়াতেন তখন আমরা এইসব খানিকটা উদাস দৃষ্টিতে দেখতাম। থাক, কবি-লেখকদের তো আবার মদ-নারি ব্যতীত সাহিত্য প্রসব হয় না। তাই তো ফরহাদ মযহার
যখন অবলীলায় মুক্তিযুদ্ধের টাকা মেরে দেন, তখন এটা আমরা উদাসিন চোখে দেখি। ফরহাদ মযহাদের বাণী না হলে আমাদের যে আবার চলে না। মননশীল বলে কথা!

*কবিবর আল মাহমুদের কেবল মুখের ছবিই দিলাম। নগ্ন শরীরের ছবি দিয়ে অশ্লীলতার দোষে দুষ্ট হতে চাই না!
**কবিবর আল মাহমুদ কী বিশাল মাপের মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন তার খানিকটা নমুনা পাওয়া যাবে আরিফ জেবতিকের এই পোস্টে এবং হাসিবের টুকে নেয়া আল মাহমুদ

3 comments:

হাসিব said...

টুকে নেয়া আল মাহমুদ

mursalin said...

এই ভন্ড মুক্তিযোদ্ধা না। উনার দল “জানামতে পিছলামী”র ভাষায় মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে যারা যুদ্ধ না করে কোলকাতায় বসে মদ আর মেয়ে নিয়ে ফূর্তি করেছে ,তিনি সে গোত্রের একজন। আর রাজাকার,আলবদরা যদি কাউকে পুরস্কার দেয়,সেটা দেবে মুক্তিযুদ্ধ করার জন্য নয় বরং মুক্তিযুদ্ধ না করার জন্য। একজন মুক্তিযোদ্ধা কখনও কোন স্বাধীনতা বিরোধী সংগঠনের সাথে যুক্ত থাকতে পারেননা।উনি খুনি,ধর্ষক,স্বাধীনতা বিরোধী এই সংগঠনের পুরস্কার গ্রহন করে নিজের আসল চেহরাটা স্পষ্ট করেছেন যে-আল মাহমুদ আসলে ল্যংটা।

।আলী মাহমেদ। said...

"আল মাহমুদ আসলে ল্যংটা।"
সহমত।
আল মাহমুদকে এমন অবস্থায় দেখব এটা আমি কল্পনা করিনি! এমন বয়স্ক একজন মানুষকে নগ্ন দেখতে ইচ্ছা করে না। আমি সম্ভবত কঠিন বলে ফেলেছি কিন্তু আমার উপায় ছিল না। আল মাহমুদের জায়গায় আমার বাবা হলেও আমি এই শব্দটাই ব্যবহার করতাম। @মোরসালিন