Monday, February 16, 2015

priyo.com: ডিয়ার, তোমাকে কি ডাকাত বলতে পারি?

আমি দিব্যচক্ষুতে দেখতে পাচ্ছি, জনাব, জাকারিয়া স্বপন বিভিন্ন মঞ্চ আলো করে বসে আছেন। সেই আলোয় চকচক করছে তার পরনের পোশাক-আশাক। চারদিকে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে হাঁ করে আছে এই প্রজন্ম। এরা অতি মনোযোগ সহকারে শ্রবণ করছে জাকারিয়া স্বপনের মধুবাক্য! তিনি জলদগম্ভীর কন্ঠে বলে যাচ্ছেন বিভিন্ন নীতিবাক্যের কথা। তিনি আউড়ে যাচ্ছেন ওয়েবসংক্রান্ত বিভিন্ন ইথিকস নিয়ে।
এই প্রজন্ম, সমীহের সঙ্গে তাকে আঙ্গুল দেখিয়ে নীচুস্বরে একজন অন্যজনকে বলছে, মামু জিনিস একটা, এক্কেবারে বস পাবলিক।

অল্প ক-দিন পূর্বেই আমি একটা লেখা লিখেছিলাম, ‘ডয়চে ভেলে বনাম প্রিয় ডট কম- ‘কৌন হে উয়ো মারদুদ’?’ [১] যেহেতু প্রিয় ডট কমের কর্ণধার জাকারিয়া স্বপন তাই আমার ক্ষীণ একটা আশা ছিল নাহ, এই মানুষটা এমনটা করতে পারেন না। অথচ এমন কর্মকান্ড করায় পূর্বে এই আমিই অনেককেই চোর বললেও এখানে এটা বলতে মন সায় দেয়নি। ওই যে বললাম সাইটটির কর্ণধার...।

কিন্তু আজ দেখছি আবারও! “প্রতিবাদ সত্ত্বেও চলছে নারীর যৌনাঙ্গচ্ছেদ!” ডয়চে ভেলের অসাধারণ এই প্রতিবেদনটি [২] হুবহু ছাপিয়েছে প্রিয় ডট কম, দাঁড়িকমাসহ [৩]! এবং ভঙ্গিটা চোরের না স্রেফ ডাকাতের!
ডয়চে ভেলে এই প্রতিবেদনটি ছাপিয়েছে ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ আর প্রিয় ডট কম ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। প্রতিবেদনের সঙ্গের ছবিগুলো জাকারিয়া স্বপন হয়তো চিনেবাদামের বিনিময়ে রয়টার থেকে কিনেছেন। হায়রে অর্বাচীন! রয়টারের ছবিগুলো ক্রপ করার কুবুদ্ধি জাকারিয়া স্বপনের মাথায় আসেনি।
যাই হোক, গত লেখায় এই সব নিয়ে বিশদ লিখেছি এখানে আর চর্বিতচর্বণ করি না। কেবল, একেক করে জাকারিয়া স্বপনের গায়ের চকচকে কাপড়গুলো খসেপড়া দেখি...।

সহায়ক সূত্র:
১. ডয়চে ভেলে বনাম প্রিয় ডট কম- ‘কৌন হে উয়ো মারদুদ’? : http://www.ali-mahmed.com/2015/02/blog-post_5.html
২. প্রতিবাদ সত্ত্বেও চলছে নারীর যৌনাঙ্গচ্ছেদ (ডয়চে ভেলে): http://tinyurl.com/kgnbxqm
৩. প্রতিবাদ সত্ত্বেও চলছে নারীর যৌনাঙ্গচ্ছেদ (priyo.com): http://www.priyo.com/2015/02/13/133229.html