Wednesday, November 3, 2010

ঘাতক!

আজ একজন আমাকে খানিকটা বিভ্রান্তির মধ্যে ফেলে দিলেন। তিনি আমাকে দুম করে বলে বসলেন, আচ্ছা, আপনি আসলে কি হতে চেয়েছিলেন?
আমি যতই বলি, আমার এমন কোন ইচ্ছা ছিল না। ভদ্রলোক এটা মানতে চান না। কী মুশকিল, আমি যখন সত্য বলি তখন লোকজন অবিশ্বাস করে। আমি যখন বানিয়ে মিথ্যা বলি তখন লোকজন এটা সত্য বলে ধরে নেয়!

'জীবনটাই যখন নিলামে' নামের বইটার একটা চরিত্র 'লোপা'। এমবিও করছে এমন একটা মেয়েকে আমি কোনক্রমেই বোঝাতে পারিনি, লোপা নামের চরিত্রটি বাস্তবের কেউ না। ওর ঘুরেফিরে একটাই কথা, 'লোপা কেন এমন করল-লোপা কেন এমন করল-লোপা কেন এমন করল'?
কী যন্ত্রণা, লোপা কেন এমন করল এটা আমি কেমন করে বলব?

তো, এরপর ভদ্রলোককে উত্তরটা দেয়া আমার জন্য বড়ো কঠিন হয়ে পড়ে; কেমন করে তাঁকে বিশ্বাস করাবো যে, কিছু হওয়ার স্বপ্ন আমার মধ্যে কখনও ছিল না। ছোটবেলায় স্কুলের খাতায় রাখাল হবো এটা বলে মাস্টার মশাইকে যথেষ্ঠ রাগিয়েছিলাম। বেচারার দোষ ধরি না। হৃষ্টপুষ্ট সব বাচ্চারা যেখানে খাতায় ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, পাইলট লিখছে সেখানে কালো-কালো, দুবলা-পাতলা একটা ছেলে লিখেছে সে রাখাল হবে। মানুষের শরীর- স্যারের রাগ হবে না বুঝি!
তখন আমি কেন রাখাল হতে চেয়েছিলাম? বয়সে অনেক বড়ো আমার রাখাল বন্ধু কি আমার উপর প্রভাব ফেলেছিল? হতে পারে, কী পেশীবহুল একটা শরীর- সুলতানের আদর্শ চরিত্র! কী সুখিই না মনে হতো ওই মানুষটাকে। কী চমৎকার করেই না বাঁশি বাজাত। খানিকটা স্বার্থপর ভাবনাও হয়তো কাজ করতো কারণ মানুষটা আমাকে বই পড়ার সুযোগ করে দিত [১], কখনও ক্ষুণাক্ষরেও কাউকে টের পেতে দিত না।

আসলে কিছু হওয়ার জন্য যে লেগে থাকাটা এটার বড়ো অভাব আমার মধ্যে। পূর্বের একটা লেখা লিখেছিলাম [২], জেমস জয়েসের স্টিফের ডেডেলাসের কথাটা আমার বড়ো পছন্দ। তার ভাষায়:
"...a medical student, a oarsman, a tenor, an amateur actor, a souting politician, a small land lord, a small investor, a drinker, a good fellow, a storyteller, somebody's secretary, something in distillery, a texgatherer, a bankrupt and at present a praiser of his own past..."
এখন প্রায়শ মনে হয়, কিছু একটা না হওয়াটা কোন কাজের কাজ না, "ঘার কা না ঘাট কা- কুত্তা ধোবি কা ঘাট কা"। তবে একটাই সুখ, নটা-পাঁচটা অফিস নামের কারাগারে আটকা পড়তে হয়নি। হুশ-হুশ। জেলার সাহেবরা অবশ্য আমাকে হন্যে হয়ে খুঁজছেন- গ্রেফতার এড়িয়ে যত দিন এমন কয়েদি হওয়া থেকে বেঁচে থাকা যায় আর কী!
শ্লা, এই দেশে ফেরিওয়ালা হওয়ারও যো নাই! একবার চিন্তা করলাম, মাটি বিক্রি করব [৩], বাতাস বিক্রি করব [৪]; ফ্লপ-ফ্লপ, সুপার ফ্লপ! :)

অন্য কারণে এটা বলি কিন্তু বালকবেলায় লেখক হতে চেয়েছিলাম এই মিথ্যাচার এখন আর করি না। দু-কলম লেখার চেষ্টা করি বলেই লেখক হয়ে গেলুম এই দাবী করার গোপন ইচ্ছাও আমার নাই। এমনিতেও লেখক হওয়ার অনেক কায়দা-কানুন আছে, কোন কানুনেই আমি পড়ি না, কায়দাও জানি না। সামনাসামনি না বললেও পেছনে যে লোকজন এটা বলে বেড়ায় এতে অন্তত আমার কোন সন্দেহ নেই, আরে, ও যা লেখে তা তো বাচ্চাদের জন্য লেখা।
এটা সত্য, বাচ্চাদের জন্য লিখতে পারলে বেশ হতো- বাচ্চাদের জন্য লেখার ইচ্ছাটা আমার সুতীব্র। কপাল, এটাও হয়নি! একবার বাচ্চাদের জন্য কিছু লেখা লিখে প্রকাশক মহোদয়কে দিলাম: 'বুক্কা এবং একচিলতে আকাশ', 'ভূত দিবস', 'মা হাতি', 'খুকি এবং দৈত্য', 'কিটি মাস্ট ডাই' [৫]। প্রকাশক সাহেবের গোঁর কারণে এটাও হলো না। এ বড়ো বিচিত্র দেশ, এখানে বাচ্চাদের বইয়ের দাম লাগামছাড়া। ১৬ পৃষ্ঠার একটা বইয়ের দাম ১০০ টাকা। ভাবা যায়! কাদের জন্য এই বইগুলো, ধনীর সন্তানদের জন্য?

একবার এক সাক্ষাৎকারে একজন আমাকে ফাঁসিয়ে দিয়েছিলেন, তাঁর প্রশ্ন ছিল, 'উত্তর আধুনিক সাহিত্য বলতে কি বোঝায়'?
লে বাবা, কে কাকে কী বলে! সাহিত্যের 'স'-ও বুঝি না তা আবার উত্তর আধুনিক সাহিত্য...! উপায়ান্তর না-দেখে আমি যেটা বলেছিলাম:
"সাহিত্য কি এটাই জানি না তা আবার উত্তর! উত্তর-পশ্চিম বুঝি না। প্রথমেই বলি সাহিত্য নিয়ে। সাহিত্য বলতে আমি মোটা দাগে যা বুঝি সেটা হচ্ছে, সাহিত্যের জন্ম রিপোর্টিং এর গর্ভে। আমি দেখতে কুৎসিত এটা হচ্ছে রিপোর্টিং। কিন্তু এই যে আমি দেখতে কুৎসিত, এই নিয়ে আমার মনে বিভিন্ন ভাব খেলা করে বলে হেন সময় আমার মনটা এই রকম, তেন সময় আমার মনটা অন্য রকম। সো, রিপোর্টিং হচ্ছে রঅ, এতে কিছুই মেশাবার অবকাশ নাই। যে সুবিধাটুকু আছে সাহিত্যে!..."[৬] 

তবে বুকে হাত দিয়ে বলি, কিছু কিছু পেশাকে আমি ঈর্ষা করি। যেদিন এই মাটাকে দেখি [৭] সেদিন নিজেকে ধিক্কার দিতে ইচ্ছা করছিল, কেন ডাক্তার হওয়ার চেষ্টা করলাম না। এটা অন্য প্রসঙ্গ ডাক্তার হওয়ার যোগ্যতা আমার ছিল, কি ছিল না। মানুষের জন্য কিছু করতে গেলে আমাদেরকে অনেক প্রস্তুতি নিতে হয় কিন্তু এই একটা পেশা যাদের আলাদা কোন প্রস্তুতির প্রয়োজন হয় না। লোটা নিয়ে বাথরুমে দৌড়াতে দৌড়াতেও কারও উপকার করতে পারা যায়। ঈর্ষা-ঈর্ষা, কী একটা পেশা, বেইবি...!

কয়েকদিন ধরে মাথায় ঘুরঘুর করছে, সুযোগ হলেই একটা বেহালা কিনব, কত দিন ধরে বাজাব এটা জানি না। বহু পূর্বে গিটার কিনেছিলাম। শেখা হয়নি কিন্তু গিটারের তার ছিঁড়তে পেরেছিলাম। বেহালারও এমন একট গতি হবে, ইনশাল্লাহ।
গাতক হওয়ার ইচ্ছা হয় কিন্তু নিজের গলায় নিজেই চমকে যাই। হায়, জলে গেল গাতক হওয়ারও ইচ্ছা। তাহলে বাকী রইল কী! আমার উপায় কি?
আচ্ছা, ঘাতক হয়ে গেলে কেমন হয়? চারদিকে যে নমুনা দেখছি এই দেশে ঘাতক হওয়াটাই সহজ। এবং কেউ যখন এটা জানতে চাইবেন, আমি কি হতে চেয়েছিলাম তখন আমার সাফ উত্তর হবে, ঘাতক হতে চেয়েছিলুম। হতে পারিনি, চেষ্টায় আছি। দোয়া করবেন...।

সহায়ক লিংক:
১. অপকিচ্ছা: http://www.ali-mahmed.com/2009/09/blog-post_02.html
২. ডেডেলাস: http://www.ali-mahmed.com/2009/09/blog-post_12.html
৩. মাটির ব্যবসা: http://www.ali-mahmed.com/2009/02/blog-post_15.html 
৪. বাতাস বিক্রি...: http://www.ali-mahmed.com/2009/06/blog-post.html 
৫. এক চিলতে আকাশ: http://www.ali-mahmed.com/2009/04/blog-post_15.html 
৬. হাওয়াই সাক্ষাৎকার: http://www.ali-mahmed.com/2007/06/blog-post_9179.html
৭. মা এবং তাঁর অদেখা সন্তান: http://www.ali-mahmed.com/2010/02/blog-post_10.html

2 comments:

Anonymous said...

Couldnt agree more with that, very attractive article

।আলী মাহমেদ। said...

:) @Anonymous