Friday, July 6, 2007

শুধু একবার আমার মাথায় হাত রেখে দিলে

মাহবুব ভাই। আপনি খুব সাধারণ (!) একজন মানুষ। আমার যে বছরে জন্ম সে বছরে আপনি এয়ারফোর্সে জয়েন করেন। আপনার সময়কার কৃতি একজন ফুটবলার।
............
আমার জীবনে যতো সব সু বা ভাল প্রত্যেকটার সঙ্গে আপনার প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ কোন না কোন একটা সংযোগ আছেই! আমি বারবার গর্তে পড়েছি, আপনি আমাকে টেনে তুলেছেন। আমার প্রতি অপার্থিব মমতা দেখাতে গিয়ে আপনি অন্যায় করেছেন আপনার পরিবারের প্রতি, নিজের প্রতি।

আমার মরে যেতে ইচ্ছা করে, যখন ভাবি আজ আপনার এ বয়সেও প্রবাসে পড়ে থাকার পেছনে আমার দায়টাই বেশী। আচ্ছা, কয়েকটা নোংরা কাগজ দিয়ে দিলেই বুঝি আপনার এইসব ঋণ শোধ করা যায়! বাহ, বেশ তো!

আমি যখন ধোঁয়া ওঠা গরম গরম ভাত খাই, নিজের বিছানায় শুই, প্রিয় মানুষদের সঙ্গে ঝগড়া করি- তখন, আপনি প্রবাসে একাকী, নিঃসঙ্গ...।
আমার বুঝি ইচ্ছে করে না, ঈদে এক চামচ সেমাই আপনাকে খাওয়াই...।

প্রায়শ ভাবি, আপনার সঙ্গে আমার সম্পর্কটা আসলে কি? পিতা পুত্রের, বড়ো ভাইয়ের, বন্ধুত্বের? আমি কনফিউজড-বিভ্রান্ত! এমনিতে আপনার সামনে ধুমসে সিগারেট খাই, যা তা রসিকতা করি, পরষ্পরের সব ভাবনা শেয়ার করি!

এমন কি আমি যে টুকটাক লেখালেখি করেছি এর পেছনেও আপনার অবদানই প্রবল। ভুলে গেছেন বুঝি, কানের পাশে সেই যে অনবরত ঘেনঘেন করতেন, কিছু একটা লেখেন, কিছু একটা লেখেন। । আপনার যন্ত্রণায় এক সময় লিখতে শুরু করলাম। অথচ, আপনি আমার লেখার এক লাইনও কখনো পড়ে দেখেছেন বলে আমার ঘোর সন্দেহ আছে! অনেক লেখা আমি আপনাকে উৎসর্গ করেছি- এসবে কি আসলেই আপনার কিছু যায় আসে?

আমার প্রিয় মানুষ হাসপাতালে অথচ আমি আমার লেখার বানান সংশোধন করছি, উপায় ছিল না- ছিঃ, এটা একটা জীবন হলো! এই সুতীব্র বেদনার কথাগুলো আমার সেই সময়কার লেখাগুলো যিনি পড়বেন, তিনি কখনোই জানবেন না- তাঁর জানার প্রয়োজন নেই!
মজার ব্যাপার হচ্ছে, ওই লেখাগুলো ছিল ফানি টাইপ লেখা। পরে অনেকেই বলেছেন, আপনি যে একটা ভাঁড়, এতে আমাদের আর কোন সন্দেহ নাই।

হাসপাতালে ভর্তি ওই প্রিয় মানুষটার সঙ্গে চোখ মেলাবার ক্ষমতা আমার কই? অথচ তিনি রাগারাগি করলে ভাল হতো- বড়ো বড়ো চোখের নির্বাক সেই ভঙ্গি আমি ষ্পষ্ট পড়তে পারছিলাম, আমার প্রাণের চেয়ে তোমার লেখালেখি বড়ো হলো কোন যুক্তিতে...!
ইশ্বর, ওই সময় নিরুপায় আমি, যখন বানানগুলো সংশোধন করছিলাম, আমার চোখের জলে অক্ষরগুলো ঝাপসা হয়ে আসছিল- এটা বললেও কেউ বিশ্বাস করতে চাইবে না....।

সেই যে আপনি আমার ঘাড়ে লেখালেখির সিন্দবাদের ভূতটাকে আয়েশ করে বসিয়ে আলগোছে সরে পড়েছিলেন- এই সিন্দবাদের ভূতটাকে আমি তীব্র অনীহায়, অনিচ্ছায় দিনের পর দিন বয়ে বেড়াচ্ছি। কতোবার চেষ্টা করেছি লেখালেখির এই ভূতটাকে ঝেড়ে ফেলতে...। মাহবুব ভাই, আপনি আমার বড় ক্ষতি করে দিলেন, জীবনটাকে এলোমেলো করে দিলেন।
তবুও আমাকে যদি অপশন দেয়া হয়, আমি কি এ গ্রহের সবচে পবিত্র স্থান স্পর্শ করতে চাইবো, নাকি আপনাকে...? মাহবুব ভাই, দ্বিতীয়বার চিন্তা না করে আমি আপনাকে স্পর্শ করার সুযোগ বেছে নেব, বারবার।
আমার বিশ্বাস না, আমি জানি, আপনি শুধু একবার আমার মাথায় হাত রেখে দিলে, আমি পরম নিশ্চিন্তে মরতে পারবো, আই বেট...।

No comments: