Saturday, January 8, 2011

সেভেন স্টার ভাঁড়

মুসা বিন শমসেরকে নিয়ে অনেক আগে লেখা হয়েছিল শুভ'র ব্লগিং-এ। সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে মুসা ঘটা করে আমাদেরকে যেটা জানিয়েছিলেন, ওখান থেকে খানিকটা শেয়ার করি:
"...

১. তার সম্পদের মূল্য ধারণা করা হয় ৩ বিলিয়নের বেশি।
২. মাঝে মাঝে তিনি তার ব্যক্তিগত জেট বিমান তার হাই প্রোফাইলের বন্ধুদের ধার দেন।
৩. টনি ব্লেয়ারকে ৫ মিলিয়ন পাউন্ড চাঁদা দিতে গিয়ে আলোচনায় আসেন।
৪. তিনি এক স্যুট কখনও দ্বিতীয়বার গায়ে দেন না, প্রতিটি স্যুটের মূল্য ৫ থেকে ৬ হাজার পাউন্ড। এমন স্যুট তার হাজার তিনেক। পোশাকের জন্য বছরে খরচ ৫ কোটি টাকা।
৫. এই লোক গ্রীসের ৭ তারা হোটেল কিনে নেয়ার পর, ওই দেশের পত্রিকায় ফলাও করে লেখা হয: মুসা কি গ্রীস কিনে নিচ্ছেন?
৬. লন্ডনে তার রয়েছে রোলস রয়েস।
৭. তার গুলশানের প্রাসাদোপম ভবনের আসবাবপত্র ইটালি থেকে আমদানি করা এবং প্রতি ৬ মাস অন্তর পরিবর্তন করা হয়। ওই ভবনে তার সেবার জন্য এক পায়ে দাঁড়িয়ে থাকে ৫০ জন মানব, যারা সব সময় ডিনার জ্যাকেট পরে থাকে।
৮. এই অতি সুদর্শন মানুষটার জন্য ডায়ানা নাকি পাগল ছিলেন।

(তবে মুসার ছবি দেখে আমার মনে হয়েছে, মানুষটার মুখের ইয়া বড় যে আঁচিলটা আছে, ডায়ানা সম্ভবত এটার জন্যই পাগল ছিলেন। মহিলাগণ পাগল হলে আঁচিল তার কি কাজে লাগে এটা অবশ্য আমি জানি না। তবে আজিজ নামে আমার যে বন্ধু আছে তার ড্রাইভারের সৌন্দর্যের কাছে মুসা মিয়া নস্যি।)...।"

এই মানুষটা প্রথম আলোচনায় আসেন ৯৪ সালে যখন ব্রিটেনের লেবার পার্টিকে পাঁচ মিলিয়ন পাউন্ড চাঁদা দিতে আগ্রহ প্রকাশ করেন। লেবার পার্টি অবশ্য মুসার এই চাঁদা গ্রহন করেনি, সঙ্গত কারণেই। লেবার পার্টির ডেভিড ব্ল্যাংকেট বলেছিলেন, "...বাংলাদেশে এমন অনেক প্রকল্প আছে যেখানে প্রচুর টাকা প্রয়োজন। ডঃ শমসের ওখানে টাকা বিনোয়োগ করলে বাংলাদেশের দুর্গত মানুষের উপকার হবে"।
ওহো, বলতে ভুলে গিয়েছিলাম এই মানুষটা একজন ডক্টর খেতাবধারী। কোন বিষয়ে তিনি ডক্টরেট করেছেন এটা আমার জানা নাই। আমাদের দেশে অবশ্য বিচিত্র কিছু মানুষের এই উপাধি আছে। এদের মধ্যে এটিএন বাংলার চেয়ারম্যানও একজন! তিনি কি বিষয়ে এই জিনিসটা বাগিয়েছেন এটাও আমার জানা নাই।
মুসা আরেকবার আলোচনায় আসেন যেবার বিটিভিতে মুসার জুতা দেখানো হয়েছিল, যে জুতায় হিরা বসানো ছিল। আমি সেই অভাগাদের একজন যাকে বিটিভিতে মুসার জুতা দেখতে হয়েছিল। নিজের কপালে নিজেই জুতাঘাত করার পর এক লেখায় আমি লিখেছিলাম, বিটিভি কি আমার ছেঁড়া চটি দেখাবে? এই জন্য যা টাকা লাগে দেব। প্রয়োজনে আত্মা বন্ধক রেখে টাকা যোগাড় করব...। 

তো, এখন পর্যন্ত মুসা এই দেশের দুর্গত মানুষদের জন্য কিছু করেছেন এমনটাও আমরা জানি না। তিনি শীতার্ত মানুষকে একটা কম্বলও দিয়েছেন এতেও আমার ঘোর সন্দেহ আছে। মানবজমিন (২০ ডিসেম্বর ২০১০) জানাচ্ছে, "মুসার নাকি সুইস ব্যাংকে ৫১ হাজার কোটি টাকা আটকে আছে। তিনি এই টাকাটা ফিরে পাওয়ার জন্য লাফালাফি-দৌড়াদৌড়ি করছেন। এখন তিনি চাচ্ছেন এই টাকাটা পেলে এই দেশের কল্যাণে খরচ করবেন। এখানে সাক্ষাৎকারে মুসার কেবল একটাই আবদার, সরকারের পক্ষ থেকে তার পরিবারকে 'সেভেন স্টার ফ্যামেলি' আখ্যা দেয়া হোক।"
ওহে, আর্মস ডিলার মুসা, আপনি এই দেশে এই টাকা খরচ করলে সেভেন স্টার কোন ছার আমরা আপনাকে ১৬ কোটি স্টার আখ্যা দেব। সয়্যার অন ইয়োরস...    

5 comments:

Anonymous said...

কে এই পাব্লিক ??? একটু বিশদ জানতে পারলে ভাল হইত

।আলী মাহমেদ। said...

পোস্টে উল্লেখ করা হয়েছিল, ২০ ডিসেম্বর দৈনিক মানবজমিন পত্রিকায় বিশদ ছাপা হয়েছিল। এই পত্রিকার ওয়েব সূত্র দেয়ায় জটিলতার কারণে এখানে সূত্রটা দিতে পারছি না বলে দুঃখ প্রকাশ করি।

বেশ খানিকটা তথ্য পাওয়া যাবে এখানে: http://taiyabs.com/2010/12/31460
যদিও এই সাইটে মানবজমিনের লেখাটি দাঁড়ি-কমাসহ স্রেফ চুরি করা হয়েছে। আবার কায়দা করে 'সূত্র জানায়'-'সূত্র জানায়' উল্লেখ করা হয়েছে। @Anonymous

Anonymous said...

I thought it was wealthy to be some tiring old fill someone in on, but I’m glad I visited. I thinks fitting mail a link to this milieu on my blog. I find credible my visitors disposition bargain that very useful.

sairas said...

@Anonymous,আপনি এক সময় সামুতে লিখতেন ?

Anonymous said...

Hahaha