Friday, September 20, 2019

হায় প্রক্টর-হায় ভিসি!




সূত্র: প্রথম আলো
বিশ্বের ৫০০ বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে আমাদের কোনও প্রতিষ্ঠান নাই বলে অনেকে ওয়াশরুমে চোখের জল ফেলেন, সেই জল মেশে নর্দমার জলে। সেই জল আর মল মিলেমিশে একাকার। এক হাজার কেন এই রকম লোকজন বিশ্ববিদ্যালয় চালাবার দায়িত্বে থাকলে এক লাখ বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যেও আমাদের কোনও প্রতিষ্ঠান থাকবে না্। আই বেট...।
জিনিয়া নামের ছাত্রীর প্রতি অভিযোগ এবং বহিষ্কার আদেশ


তারই প্রতিষ্ঠানের ছাত্রীর সঙ্গে যে ভাষায় (বাপ তুলে...তোর বাপরে জিগাইস...তোর বাপ ইউনিভার্সিটিতে পড়ছে?....তুই তো রাস্তায়-রাস্তায় ঘুইরা বেড়াইতি) ভিসি কথা বলেছেন তা শুনে তো মনে হয় না এই লোকটা আদৌ পড়াশোনা করেছে। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে এই লোক 'নেকাপড়া' করেছে তো নইলে ভিসি হয় কেমন করে!



আমি যেটা বলে থাকি কার একাডেমিক সনদ কতটা ঝকঝকে তারচেয়ে জরুরি হচ্ছে সেই মানুষটা কতটা মানবিক সে বিশ্ব-পাঠশালায় পড়েছে কিনা? ওই পাঠশালাটা কোথায়? আর কোথায়? এখানে-সেখানে-ওখানে।
আজই পড়ছিলাম কানাডার প্রধানমন্ত্রী ট্রুডো ক্ষমা চাইতে চাইতে ছয় ফুট শরীর ভেঙ্গেচুরে তিন ফুট হয়ে গেছেন। কেন? যৌবনবেলায় তিনি গায়ে কাল রং মেখে এক সাজ সেজেছিলেন যেটা এক ধরনের বর্ণবাদ।   

এই বর্ণবাদের উদাহরণটা অবশ্য এই ভিসি বুঝবে না। ও আচ্ছা, রবার্ট মুগাবের বর্ণবাদ নিয়ে অসাধারণ কথাটা বলি তাহলে নাসির মিয়াস্যার? এখানে উল্লেখ করাটা জরুরি 'মিয়া' বহিষ্কার হবে।
“Racism will never end as long as white cars are still using black tyres.
Racism will never end if people still use black to symbolise bad luck and white for peace.
Racism will never end if people still wear white clothes to weddings and black clothes to funerals.
Racism will never end as long as those who don't pay their bills are blacklisted not white listed.
But I don't care, as long as I'm still using white toilet paper to wipe my black ass, I'm happy."


যাই হোক, শেষ পর্যন্ত আমাগো ভিসি সাহেব জিনিয়া নামের সেই আলোচিত ছাত্রীর বহিষ্কারাদেশ বাতিল করেছেন:

এই প্রেক্ষিতে এই চিঠির যে ভাষা কেবল একটা কথাই বলা চলে, চলমান এক ভাঁড়!

...
এরপর...
এটা একজন ভিসির প্রেস কন্ফারেন্স!


এই মানুষটার হাতের সঙ্গে যে পা-ও সমান তালে চলে এর ছোট্ট একটা নমুনা:

No comments: