Saturday, February 21, 2015

আস্পর্ধা!

এই বছর সবচেয়ে ব্যবসাসফল ব্যাংক ইসলামী ব্যাংক। এরা ব্যবসা বোঝে না এটা আর বলার উপায় নেই, সব বোঝে। ঝানু -ঝানু ব্যাংকারদেরকে এরা অনায়াসে পেছনে ফেলে দিয়েছে। আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকও খুব একটা পিছিয়ে আছে এমনটা মনে হয় না। কৃষি ব্যাংকে চাকুরি করেন এমন একজন আমাকে বলছিলেন কৃষি ব্যাংকের সঙ্গে ইসলামী শব্দটা লাগিয়ে দিলে এটাও চমৎকার ব্যবসাসফল ব্যাংক হতো।

যাই হোক, সেটা তার বক্তব্য, সে ভিন্ন প্রসঙ্গ। ঝাঁ-চকচকে সেন্ট্রাল এসি আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকটি আজ (২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫) যে পতাকাটা লাগিয়েছে এটা মাপে এতই ছোট যে ছবি উঠাবার সময় আমাকে জুম ব্যবহার করতে হয়েছে। এতো ছোটমাপের পতাকা পানদোকারদারও লাগায় কিনা এতে আমার সন্দেহ আছে।

এখানকার সবচেয়ে চালু এলাকায় সবচেয়ে দামী জায়গায় ভাড়াথাকা এই ব্যাংটিতে টনকে টন এসি, স্ট্যান্ডবাই জেনারেটর, উর্দিপরা দারোয়ান থেকে শুরু করে, কী নেই! সবই আছে, কেবল নেই একটা মাপমতো পতাকা!
২১ ফেব্রয়ারির পতাকা আনন্দের পতাকা না, অতি বিষাদের পতাকা। এটা একটা বাচ্চাও জানে এই দিনে পতাকা অর্ধনমিত থাকে। কেবল জানে না আল আরাফাত ইসলামী ব্যাংক!
এটা তো সাধারণ কোনও প্রতিষ্ঠান না, বানিজ্যিক ব্যাংক। সবাই ছুটিতে চলে যাবে এটা অবিশ্বাস্য! বিশ্বাস না হলে এই ব্যাংকে অনুমতি ব্যতীত একটা মাছি গলে দেখুক না। যান না, কেউ ভল্ট ভেঙ্গে ‘জিনিস’ নিয়ে আসেন না গিয়ে। দেখেন না, কেমন ঝাঁকে-ঝাঁকে এদের লোকজন এসে হাজির হয়। যতই আপনি চেঁচান, ‘ক্যাচ মি ইফ য়্যু ক্যান’- এরা আপনাকে ক্যাঁক করে ধরে ফেলবেই- ‘ত্র্যম্বকের ত্রিনয়ন ত্রিকাল’ হলেও বাঁচোয়া নেঁই।

তাহলে, সমস্যটা কোথায়? সীমাহীন আস্পর্ধা এই কারণে কারণ এদেরকে এটাই শেখানো হয়েছে রক্তাক্ত পতাকা একটা কাপড় বৈ অন্য কিছু না। দেশের প্রতি নিবেদিত থাকাটাও বিশেষ জরুরি না তেমনি নিজের মাতৃভাষাকে অবজ্ঞা করাও দোষের কিছু না।

No comments: