Saturday, December 6, 2014

চিংগুরা দেশের শিক্ষামন্ত্রী!!

‘চিংগুরা’ দেশ নিয়ে পূর্বেও কিছু লেখা লিখেছিলাম। চিংগুরা দেশটা ঠিক কোথায় এটা কেউ-কেউ জানতে চেয়েছিলেন। আগেও বলেছি ম্যাপটা জরাজীর্ণ হএয়ার কারণে স্পষ্ট করে বলতে পারিনি তবে যতটুকু মনে পড়ে এটা ‘বাংগুরা’ দেশের পাশেই।
চিংগুরা দেশটা জ্ঞান-বিজ্ঞান, সভ্যতায় পৃথিবীর অন্যান্য দেশ থেকে অনেকটা এগিয়ে ছিল। না, ভুল বললাম। সমস্ত দিক দিয়ে গোটা গ্রহের সমস্ত দেশ মিলিয়েও চিংগুরার ধারেকাছেও ছিল না।

আর চিংগুরা দেশের একেকটা আইডিয়া- আহা, কী অতুলনীয়, অভূতপূর্ব! কেবল শিক্ষাব্যবস্থার কথাই যদি বলি...। ১০০ জন পরীক্ষা দিলে ১০২ জন পাশ করত! পাশ দিতে দিতে চিংগুরা দেশে পাশ দেওয়ার ছেলেপেলের বিকট অভাব দেখা দেওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিল। ওই দেশের শিক্ষামন্ত্রীর মন্ত্রীত্ব যায় যায় অবস্থা। না-গিয়ে উপায় কী! শিক্ষা দেওয়ার মত ছেলেপেলে না-থাকলে মন্ত্রী কোন কাজের? চিন্তায়-চিন্তায় কেশ হয় পগারপার! অনেক মাথা খাটিয়ে জটিল আঁক কষে শিক্ষামন্ত্রী একটা উপায় বের করলেন। পরীক্ষার সময় মোবাইল ফোন এবং ফেসবুক বন্ধ করে দেওয়া সিদ্ধান্ত নিলেন।
পাঠকের বোঝার সুবিধার্থে মোবাইল ফোন এবং ফেসবুক শব্দটা ব্যবহার করেছি। সত্যি বলতে কি, চিংগুরা দেশে মোবাইল ফোন নামের কোনও জিনিস ছিল না- মোবাইল ফোনের বদলে ‘কবুতরফোন’ ব্যবহার করা হতো। কবুতরের পায়ে একটা জমাট দুধের খালি চোঙা বেঁধে দেওয়া হতো। কবুতর প্রেরকের ওই চোঙা নিয়ে প্রাপকের কাছে উড়ে যেত। এরপর প্রাপক ওই চোঙায় মুখ লাগিয়ে...। এটা একটা জটিল প্রক্রিয়া এর বিশদ বুঝিয়ে বলার সাধ্য আমার নাই। আর সেদেশে ফেসবুকও ছিল না। রোদে বসে একজন অন্যজনের মাথার উকুন বাছতে বাছতে বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা নিয়ে আলোচনা করত। ওটারনাম ছিল ‘ফ্রেসমুখ’।

যাই হোক, এ তো কেবল তবলার ঠুকঠাক, কেবল শুরু। ক্রমশ যে পরীক্ষার সময় আপিস-আদালত বন্ধই না কারফিউ ঘোষণা করা হবে এ তো আর সাধারণ মানুষের জানার কথা না। পরীক্ষা চলাকালীন ক্রমশ কারফিউ ঘোষণা করা হবে, কারও ঘর থেকে বেরুবার যো থাকবে না। তখন কেবল একটাই কাজ...।

কেন এই সমস্ত উদ্যোগ? এই নিয়ে চিংগুরা দেশের লোকজনেরা একে অপরের মাথার উকুন বাছার সময় সামাজিক আলোচনায় মগ্ন হয়ে চুল ছিঁড়বে কিন্তু কোনও সমাধানে পৌঁছতে পারবে না। কিন্তু কোনও এক বিচিত্র কারণে সেই দেশের জনসংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়বে। নিয়ম করে পরীক্ষা দেওয়ার চেলেপেলেদের অভাব আর থাকবে না। সেই দেশে আনন্দই আনন্দ।