Wednesday, June 20, 2012

ব্লগগুরু, মহোদয়গণ।

­আমার কেবলই মনে হচ্ছে আমাদের ব্লগস্ফিয়ার নিয়ে অনবরত কুৎসিত শলা হচ্ছে, কেমন করে একে দাবিয়ে রাখা যায়। সরকারী লোকজনেরা আদা খেয়ে এর পেছনে লেগেছেন আর বেসরকারী চামুচ টাইপের লোকজনেরাও পিছিয়ে নেই! তাদের তো আর আদা খেয়ে পেছনে লাগার সুযোগ নেই তারা আদার বদলে মুড়ি খেয়ে লেগেছেন। আমরা ব্লগের ভাষায় বলি, 'মুড়ি খাও'।
এই রে, জাত গেল-জাত গেল। আমি যে ব্লগের ভাষা বলে ফেললুম, এখন উপায়? আমাকে কী গোবর খেয়ে প্রায়শ্চিত্ত করতে 'হপে'? সেরেছে গোবর পাই কই- সব কাজকাম (আসলে হবে 'অকাজকাম') ফেলে এখন কী গরুর (মতান্তরে ব্লগগুরু) পেছনে পেছনে আমাকে পট নিয়ে ঘুরতে হবে?

এক অনুষ্ঠানে থাকার সুবাদে আমি বিস্ময়ের সঙ্গে লক্ষ করেছিলাম, সরকারী লোকজনেরা কেমন করে আমাদেরকে ফাঁদে আটকাবার চেষ্টা করছেন [১]। এবং আমরা কী অনায়াসেই না ছুঁড়ে দেয়া ল্যাসো গলার মালা বানাবার অভিপ্রায়ে লেজ নাড়াচ্ছি।

এই সব চলেই আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় একটি দৈনিকে প্রধান শিরোনাম হয় 'যাচ্ছেতাই ভাষা বাংলা ব্লগে''। এই লেখাটা লিখেছিলেন বিপ্লব রহমান। তিনি নাকি আবার সিনিয়র সাংবাদিক! এখানে এই মানুষটাকে নিয়ে লিখে খুব একটা শব্দ খরচ করতে চাচ্ছি না, স্রেফ শব্দের অপচয়। কেবল এই লেখাটাই যথেষ্ট এটা বোঝার জন্য কেমন করে একজন সাংবাদিক 'সাম্বা-ধিক' [২] হয়ে যান।
আমি ওই লেখায় বলার চেষ্টা করেছি কেমন করে তিনি বানিয়ে বানিয়ে তথ্য উপুড় করে দিয়েছেন। এটাও বোঝার জন্য রকেটবিজ্ঞানী হওয়ার প্রয়োজন হয় না এই মানুষটা অতি জরুরি ওই লেখাটিকে মনের মাধুরি মিশিয়ে আমাদেরকে শিশু ভ্রমে হাতে ললিপপ ধরিয়ে দিয়েছেন। লেখা নামের সেই ললিপপে সত্যের লেশমাত্র নাই!
যাগ গে, 'যাচ্ছেতাই ভাষা বাংলা ব্লগে'' এই লেখাটার বিষয়ে অল্প কথায় বলি, রে পাষন্ড, কেউ কেউ যাচ্ছেতাই ভাষায় লিখলেই বুঝি দুম করে বলে দেয়া যায়, ব্লগের ভাষা যাচ্ছেতাই! তাহলে মিলন সাহেবের চটিগুলোকে সামনে রেখে 'আপুনি' বিপ্লব রহমান একটা লেখা লিখে ফেলুন না যে 'যাচ্ছেতাই ভাষা বাংলা সাহিত্যে'।

এর পরপরই যে কুশীলব নৃত্য করার অভিপ্রায়ে রঙ্গমঞ্চে এসেছেন তিনি ইমদাদুল হক মিলন। অনুমান করি সম্পাদকের লেখাটা তিনিই লিখেছেন, 'ব্লগের শব্দ ব্লগের কথা',অশ্লীলতা থেকে দূরে থাকুক' [৩]। গুরু বলছেন, 'অশ্লীলতা থেকে দূরে থাকুক'!
হা ভগবান, তুমি আর আগের ভগবান নাই নইলে বলতাম: 'ভকোপান', তোমার মাটিকে বলো, সরে দাঁড়াক, বড্ডো লাগছে।
কচ-কচ-কচ, মিলন সাহেবরাই তো সাহিত্য চিবিয়ে খাচ্ছেন। বেচারা মিলন, খাদক টাইপের মানুষ। সাহিত্য শ্যাষ, তা এখন কি উপোস? আরে না, এখন যে তাই বুড়া বয়সে ব্লগের মাথা চিবিয়ে খাবেন। নাকি অর্থমন্ত্রীর মত তাঁরও এই ধারণা জন্মেছে যে শেয়ার বাজারের মত ব্লগবাজারও দুষ্টু?

মিলন সাহেবকে নিয়ে এক লেখায় লিখেছিলাম:
"ইমদাদুল হক মিলন মানুষটা সুদর্শন, কোট-টোট পরলে জেল্লা আরও বাড়ে; চেহারা খোলতাই হয় কিন্তু এই সমস্ত কর্মকান্ড করার পর মানুষটাকে স্রেফ নগ্ন একজন মানুষ বলে ভ্রম হয়। বিষাদের সঙ্গে বলি, বয়স্ক একজন মানুষকে নগ্ন দেখতে ভালো লাগে না..."[৪]
তাঁর সাহিত্য নিয়ে লিখে শব্দের অপচয় হবে বলে এই পথ মাড়ালাম না, তিনি একটি পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকের দায়িত্ব পালনকালে প্রথম পাতায় কলামের নামে যে ভাষা ব্যবহার করেন [৫] এতে করে ওই মানুষটাকে আমার কেবল নগ্নই মনে হয়নি, অসুস্থও মনে হয়েছিল!

তো, তিনি ব্লগের শব্দ... লেখায় লিখেছেন, "...বিটিআরসি শুধু অভিযোগ পেলেই ব্যবস্থা নেবে বলে সংবাদ প্রকাশ হয়েছে। এটা যৌক্তিক নয়। মনিটরিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে সরকারকেই"।
বটে, কত বুদ্ধি ঘটে, মিলন গেলেন চটে। খাসা বলেছেন। তিনি কি এরশাদ আমলের প্রেস এডভাইস [৬] টাইপের কিছু চাচ্ছেন? কেবল প্রেস এডভাইসের জায়গায় হবে 'ব্লগ এডভাইস'।

মিলন সাহেবদের মত মানুষেরা ঘটে কত্তো কত্তো বুদ্ধি রাখেন সমস্ত খবর কী আর আমরা রেখে বসে আছি! এইসব বুদ্ধিমান মানুষেরা কেমন করে আমাদেরকে বোকা বানান তার একটা নমুনা দেই:
সূত্র: কালের কন্ঠ
সূত্র: কালের কন্ঠ
যে পত্রিকার সম্পাদক মিলন সাহেব নিজেই সেখানে তাঁর বইয়ের আলোচনা না-দেয়াটাই সমীচীন, ভদ্রতা। তর্কের খাতিরে ধরে নিলাম না-দিলে বাংলা সাহিত্যের পিঠে চাবুক পড়বে, দেয়াটা অতি জরুরি। বেশ, কিন্তু এখানে আমরা বিস্ময়ের সঙ্গে লক্ষ করি, অন্য লেখকদের বইয়ের প্রচ্ছদগুলো শুয়ে শুয়ে রোদ পোহায় কিন্তু যখন মিলন সাহেবের বইয়ের প্রসঙ্গ আসে তখন বইগুলো কেবল সটান দাঁড়িয়েই যায় না মিলন সাহেবের বই একেবারে সামনে চলে আসে। যুদ্ধের ময়দানে দুর্ষর্ষ যোদ্ধা! আফসোস, একজন নির্লজ্জ মিলন!

যাই হোক, গুরু বলছেন- গ ুরু (ছাপার ভুল) বলে কথা! আর কেউ শিখুক আর না-শিখুক কিন্তু আমি গুরুর কাছে শিখতে আগ্রহী কেমন করে ব্লগিং করতে হয়? গুরুর চরণতলে বসে শিখতে আমার কোনো আপত্তি নাই। রে গুরু! গুরুর নামে শুরু করিলাম। বলেন গুরু, অশ্লীলতা কাহাকে বলে, কত প্রকার ও কি কি...।

সহায়ক সূত্র:
১. কাবাব মে হাড্ডি: http://www.ali-mahmed.com/2012/02/blog-post_25.html
২. সাম্বা-ধিক: http://www.ali-mahmed.com/2011/04/blog-post_21.html
৩. ব্লগের শব্দ ব্লগের কথা: http://www.dailykalerkantho.com/index.php?view=details&type=gold&data=Recipe&archiev=yes&arch_date=16-06-2012&pub_no=915&cat_id=2&menu_id=19&news_type_id=1&news_id=261992
৪. ছাগুবান্ধব প্রিন্ট-মিডিয়া: http://www.ali-mahmed.com/2012/01/blog-post_14.html 
৫. নষ্ট শিক্ষক, নষ্ট লেখক: http://www.ali-mahmed.com/2011/07/blog-post_09.html 
৬. প্রেস এডভাইস: http://www.ali-mahmed.com/2011/07/blog-post_17.html   

7 comments:

সায়ন said...

এখানে দু'টা লিংক রেখে যাওয়ার প্রয়োজন বোধ করছিঃ
এস্তেনজা সম্পাদক ''ইমদাদুল হক যৌন মিলনের'' পত্রিকায় বাংলা ব্লগে জনপ্রিয় চিত্রশিল্পী, নৃত্যশিল্পী, কথাশিল্পী, কন্ঠশিল্পী, প্রচ্ছদশিল্পী, ভাস্কর্যশিল্পী, গীতিকার, সুরকার, থিয়েটার অভিনেতা, মডেল ও মিউজিক ভিডিও নির্মার্তা মোর্শেদুল কুতুব চৌধুরী মজনু এর সাথে বলিউড হার্টথ্রুব কারিনা কাপুরের সাক্ষাতের সেই মাহেন্দ্রক্ষণের স্মৃতিচারণমূলক সচিত্র একটি নিউজ করেছে।
নিউজটির লিংক
আর মজুন সাহেবকে জানতে পড়ুন

।আলী মাহমেদ। ali mahmed । said...

"এস্তেনজা সম্পাদক..."
হা হা হা। এস্তেনজা সংক্রান্ত সংবাদটার তারিখ ভুলে গেছি, লিংকটা এখানে থাকলে মন্দ হতো না।

সামুর লিংকটা দেখলাম। মজনু 'লুকটা' একটা উম্মাদ, বদ্ধউম্মাদ। গ্রামের ভাষায় বলি, মানুডা একটা ল্যাংটা পাগল! @সায়ন

সায়ন said...

এস্তেনজা সংক্রান্ত সংবাদটা এখানে ;)

।আলী মাহমেদ। ali mahmed । said...

"এস্তেনজা সংক্রান্ত সংবাদটা এখানে...।" (ভাল কথা, পোস্টে তো অপশন থাকে কিন্তু এখানে মন্তব্যের ঘরে হাইপার লিংকগুলো কেমন করে বসিয়ে দেন!)
যাই হোক, শুকরান :)
এই জিনিসগুলো সংরক্ষণ করার প্রয়োজন আছে।

কালের কন্ঠ, ছাগুবান্ধব প্রিন্ট মিডিয়া! http://www.ali-mahmed.com/2012/01/blog-post_14.html

কসম, প্রথম আলো নামাজকে কটাক্ষ করছে কালের কন্ঠের লেখাটা পড়ে মিলনের জন্য আমার বড় কষ্ট হচ্ছিল, এই কারণে না যে মিলনের আধোয়া অন্তর্বাস দেখা যাচ্ছিল; কষ্ট হচ্ছিল এই কারণে আহা, মানুষকে পেটের জন্য কত কিছুই না করতে হয়!
হায় পেট, সোনালী জিনিসভর্তি পেট!

আমি নিশ্চিত, শাহআলম চাইলে মিলন সোনালী জিনিসে মাখামাখি হয়ে হামাগুড়ি দেবে। বেচারা! @সায়ন

সায়ন said...

কমেন্টে পোষ্টের মত করেই দিয়ে দেই। পোষ্টে যে কোড ইউজ করে কমেন্টে সেই কোড লিখে দিলেই হবে।
এই
লিঙ্কে গিয়ে ''HTML Anchor'' এর পাশে একটা কোড দেয়া আছে দেখুন। ওখানে http://www.domain.com/ এর জায়গায় আপনার লিঙ্ক। Visit Our Site এর জায়গায় আপনার টেক্সট লিখলেই মন্তব্যে হাইপার লিঙ্ক চলে আসবে।
------------------------------
''শাহআলম চাইলে মিলন সোনালী জিনিসে মাখামাখি হয়ে হামাগুড়ি দেবে।''

কল্পনা করে হাহাপগে

।আলী মাহমেদ। ali mahmed । said...


কী তামশা

।আলী মাহমেদ। ali mahmed । said...

আরে-আরে, কী সর্বনাশ এটা কাজ করছে দেখি!

শোনেন, চুপিসারে বলি, এটা যে আমি আগে জানতাম না এটা কিন্তু কাউকে বলবেন না :) @সায়ন