Tuesday, February 21, 2012

হে যুবক, হে নীরোগ, এভাবে চলে যেতে হয় না

­বাচ্চাদের জন্য 'মশা' নিয়ে কিছু লেখা লিখেছিলাম, কিটি মাস্ট ডাই: এক[১], কিটি মাস্ট ডাই: দুই[২]। বাচ্চাদের বইয়ে নাকি ছবি-টবি আঁকার কিছু বিষয় থাকে। নেশাখোর আর্টিস্ট ভেগে যাওয়ায় প্রকাশক ভাইয়ার সেই পরিকল্পনা ডোবায় তলিয়ে যায়। পরে আমিও বুদ্ধি করে এই লেখাগুলোই বড়দের বইয়ে ঢুকিয়ে দিয়েছিলাম।

বুক্কা নামের সেই মশার মৃত্যুতে কেউ বিষণ্ণ হয়েছিল কিনা জানি না কিন্তু এখানে মুরাদুল ইসলাম নামের মানুষটিকে দেখছি মশাদের জন্য ভালই উদ্বিগ্ন হতে :)। এমন যুবক, নীরোগ একজন প্রাণ নষ্ট করে ফেললে কাতর না-হয়ে উপায় কী! মজার বিষয় হচ্ছে  মুরাদুল ইসলামের এই লেখাটি যখন পড়ছিলাম তার কিছুক্ষণ আগে আমার চায়ের কাপেও একটি মশার মৃতদেহ আবিষ্কার করেছিলাম। কিন্তু আমার মাথায়  মুরাদুল ইসলামের মত ভাবনাগুলো খেলা করেনি। তখন কি ভাবনা খেলা করছিল তা এখানে বললে সূক্ষরূচির পাঠকের গা গুলাবে। :D

অতএব সেই প্রসঙ্গ থাকুক। আজকের অতিথি  মুরাদুল ইসলাম। তিনি লিখেছেন মশা নিয়ে:
"কেউ মশা মারবেন না। কারণ আপনি যে মশাটিকে মারবেন বলে হাত তুলেছেন এই মশাটি হয়ত অন্য কোনো মশার গার্লফ্রেন্ড, বউ, লাইফ পার্টনার মানে বেটার হাফ। হয়ত তাদের প্রেম ছিল স্কুল লাইফ থেকে! সুতরাং একটা মশা মারা মানে একটা প্রেমকে ধ্বংস করা, একজন প্রেমিক মশাকে স্ত্রীহারা করা।

এমন করুণ ঘটনাও ঘটে! চা খাচ্ছিলাম বসে। খাওয়া না ঠিক, পান করা, চা পান করছিলাম। এমন সময় এক যুবক মশা এসে লাফ দিয়ে পড়ল আমার চায়ের কাপে!

আলোকচিত্র: মুরাদুল ইসলাম
মশাদের প্রতি আমার একধরনের ভালবাসা আছে। এরা যে মহৎ এবং উৎকৃষ্ট মানের শিল্পী তা আগে অনেক স্ট্যাটাসে লিখেছি।কিন্তু আমাদের দেশে এই শিল্পীদের দাম নেই। ইভা রহমানের গানের এলবাম থাকলেও মশাদের নেই, কি দুঃখের কথা! সেই দুঃখ শেষ হতে না হতেই আরেক দুঃখ! জলজ্যান্ত এক মশা আজ আমার চোখ এবং মাইনাস ফাইভ পাওয়ার চশমার সামনে এভাবে আত্মহত্যা করল! কোন দুঃখে উত্তপ্ত চায়ে ঝাঁপ দিল এই মশা?

দেশে এসব হচ্ছেটা কি! তাও ভ্যালেনটাইনস-ডের পরের দিন! এই দিক থেকে বোঝা যায় এ নির্ঘাৎ প্রেমে ব্যর্থ হয়ে ঝাঁপ দিয়েছে উত্তপ্ত চায়ের মাঝে। কাল কাউকে অফার-টফার করেছিল বোধহয়। কিন্তু সেই পাষাণী মশা তাকে পাত্তা দেয়নি। সেই দুঃখে, কষ্টে, ক্ষোভে, অপমানে এই সুস্থ সবল নীরোগ সুদর্শন মশাটি চলে গেল দুনিয়ার মায়া ছেড়ে।

প্রেম কেড়ে নিল আরেকটি সম্ভাবনাময় প্রাণ। আমি এই মশার আত্নহত্যার পিছনে যে সমস্ত কারণ, ব্যক্তি-বস্তু, প্রাণী থাকতে পারে এদের সবাইকে জানাচ্ছি তীব্র ধিক্কার। আর শোক প্রকাশ করছি এই তরুণ প্রতিভাবান, বাংলার মশককূলের গর্ব, সত্যিকার প্রেমিক এই মশাটির মৃত্যুতে"।

সহায়ক সূত্র:
১. কিটি মাস্ট ডাই, এক: http://www.ali-mahmed.com/2009/02/blog-post_03.html
২. কিটি মাস্ট ডাই, দুই: http://www.ali-mahmed.com/2009/02/blog-post_9693.html

1 comment:

রাহা said...

হাহ হাহা,মজাক পাইলাম