Tuesday, June 1, 2010

ডিজিটাল জাদু!

কালের কন্ঠ আমাদেরকে চমকের পর চমক দেখিয়েই যাচ্ছে। এদের কল্যাণে নাইব উদ্দিন আহমেদের অতি বিখ্যাত মুক্তিযুদ্ধের ছবি হয়ে যায় সংগৃহিত [১]। পাঠক ভুল ধরিয়ে দিলে সেই পাঠকের মন্তব্যও [২] উধাও হয়ে যায়। যাদু-যাদু!

আমরা যারপর নাই মুগ্ধ! কালের কন্ঠ এখন আমাদেরকে জানাচ্ছে, অন-লাইনে তাদের পাঠক সংখ্যা প্রায় তিন লক্ষ! ৩১ মে, ২০১০, এদের অন-লাইন পাঠক সংখ্যা ছিল ২ লক্ষ ৬৫ হাজার।
একই কান্ড প্রথম আলোও করত। এই বিষয়টা প্রথম আলো দীর্ঘ সময় চালু রেখেছিল। এখন প্রথম আলো চর্বিতচর্বণ-জাবরকাটা বন্ধ করেছে। এখন আর প্রথম আলোর অন-লাইন যাদুটা আর দেখতে পাওয়া যায় না।


কালের কন্ঠের এই খবরটা অতি আনন্দের সংবাদ! কিন্তু এলেক্সা বলছে, কালের কন্ঠের ট্রাফিক র‌্যাঙ্ক প্রায় ২৫ হাজার। যে পত্রিকার অন-লাইন পাঠকসংখ্যা প্রায় তিন লক্ষ এদের ট্রাফিক র‌্যাঙ্ক আনুমানিক ১০ হাজারের নীচে হওয়ার কথা, অন্তত। 
হতে পারে এটা বিদেশী চাল- এলেক্সা 'কানডামি'-পক্ষপাতিত্ব করছে, ঠিক হিসাবটা দিচ্ছে না। আমি এই বিদেশী চালের নিন্দা জানাই- এদের কালো হাত আরও কালো হোক, কালো হাত ভেঙ্গে দিতে হবে।

এই গ্রাফটা যদি লক্ষ করি, তাহলে আমরা দেখতে পাব নীচের রেখাটা কালের কন্ঠের এবং উপরের রেখাটা প্রথম আলোর। একা কালের কন্ঠেরই অন-লাইন পাঠকসংখ্যা তিন লক্ষ হলে প্রথম আলোরটা যোগ করে দিনে দিনে এদের অন-লাইন পাঠক সংখ্যা ১৬ কোটি ছাড়িয়ে গেলেও আমি বিস্মিত হবো না। কারণ এ যে ডিজিটাল যাদু!

এই সব বিষয়ে অবশ্য আমার জ্ঞান বাংলাদেশে ফেসবুক বন্ধ করে দেয়া আমলাদের চেয়েও অনেক কম। বুঝতে খানিকটা সমস্যা হয়। 
আচ্ছা, অন-লাইন পাঠকসংখ্যা বলতে এরা কি বলতে চাইছে? একজন পাঠক ছত্রিশবার ক্লিক করে এদের খবর পড়লে সে কি একজন পাঠক, নাকি ৩৬ জন পাঠক হিসাবে বিবেচিত হবে?
আরও জানার ছিল, কালের কন্ঠের সাইটটা আমি রিফ্রেস করার সঙ্গে সঙ্গে দেখেছি এদের পাঠক সংখ্যা ধাঁ ধাঁ করে বাড়ছে। একবার রিফ্রেশেই ১০০/১৫০ করে পাঠকসংখ্যা বাড়ছে! 
মানেটা দাড়াচ্ছে প্রতি সেকেন্ডে অনেকজন করে এই সাইটটাতে পদধুলি দিচ্ছে (দুঃখিত, পদধুলি হবে না, হবে পদ-কাদা। কারণ এখন বর্ষাকাল, ধুলি বড়ো দুর্লভ!)। 
বাহ, চমৎকার তো- কপারফিল্ডের পর কালের কন্ঠের ভক্ত হলুম। এরা দানব বানাবার কারখানার [৩] পাশাপাশি কতো ধরনের যে কারখানা খুলে রেখেছে এর ইয়াত্তা নাই।

সহায়ক লিংক:
১. নাইব উদ্দিন আহমেদ, সংগৃহিত: http://www.ali-mahmed.com/2010/03/blog-post_6688.html
২. চোট্টামি: http://www.ali-mahmed.com/2010/05/blog-post_08.html

৩. দানব বানাবার কারখানা: http://www.ali-mahmed.com/2010/05/blog-post_28.html