Tuesday, April 6, 2010

সিগারেটবাবা, চাক্কাবাবা

(অতি সূক্ষ রুচির পাঠকের জন্য আগাম সর্তকতা। এই পোস্টে লেংটিপরা একজন মানুষের বডির ছবি দেয়া হয়েছে। এই বিষয়ে আমার স্পষ্ট বক্তব্য, একজন মানুষ মারফতি লাইনের দোহাই দিয়ে লেংটি পরে জনসমক্ষে দিব্যি ঘুরে বেড়াতে পারবেন আর আমি লেখার প্রয়োজনে সেই ছবি দিতে পারব না এমনটা আমি মনে করি না।)

আগে লিখেছিলাম, জুতাবাবা, গুবাবা-কে নিয়ে। এবার সিগারেটবাবা, চাক্কাবাবা। আমাকে একবার একজন জিজ্ঞেস করেছিলেন, আপনার বুদ্ধি কেমন? আমি বলেছিলাম, গাধার বুদ্ধি আমার চেয়ে বেশি এটা আমি বিশ্বাস করি না।
প্রশ্নকর্তার এখানেই আমাকে ছেড়ে দেয়ার কথা কিন্তু মানুষটা ত্যাঁদড় টাইপের। তিনি ছাড়লেন না, এটা আপনি কেমন করে বললেন? এই কথার পেছনে যুক্তি কী?
আমি বললাম, আমি স্মোক করি, নিয়মিত। নিজেকে বুদ্ধিহীন ব্যতীত অন্য কিছু বলার অবকাশ আমার নাই।
মানুষটা আর রা কাড়েননি!

ড. জনসন চমৎকার বলেছেন, "সিগারেট হচ্ছে সেই জিনিস। তামাক সুদৃশ্য কাগজে মুড়িয়ে দেয়া হয়। এর একপাশে থাকে আগুন অন্যপাশে আস্ত এক নির্বোধ।"
এ গ্রহের কুৎসিত আবিষ্কার সিগারেট নামের জিনিসটা সম্বন্ধে খানিকটা জানা যাবে এখানে

বাবা-টাবারা যখন ধুমসে সিগারেট টানেন তখন আর মানুষটার প্রতি কোন আগ্রহ থাকে না কারণ মানুষটা আমার পর্যায়ে নেমে আসেন। স্টেশনে এমনই এক সিগারেটবাবাকে পেয়ে যাই। সঙ্গে আমার ফটো খিঁচাবার যন্ত্রপাতি নাই। সাথের একজনকে বলি, এর ছবি উঠাও তো।
তার সাফ উত্তর, তাইনের হাতের ডান পাশের লাঠিটা দেখছেন? বাড়ি দিলে আপনে ফিরাইবেন।
আমি বিরক্ত হই, মিয়া, ছবি উঠাতে আবার বুক-ডন দিতে হয় নাকি। উপরে উঠাইবা, নীচে উঠাইবা, ডানে-বাঁয়ে। এরিমধ্যে কাজের ছবি উঠায়া ফেলবা।
এর প্রয়োজন হয়নি, না বলে ছবি উঠাবার অন্যায়টা করতে হয়নি। এই মানুষটাকে ছবি উঠাবার কথা বলতেই দিব্যি পোজ দিয়ে দাঁড়িয়ে যান। আজকাল বাবাদের মধ্যেও আধুনিকতার ছোঁয়া লেগেছে!  























পেয়ে যাই চাক্কাবাবাকে!  ইনি লাঠি  বয়ে বেড়াতে নারাজ!  লাঠির মধ্যে  চাকা লাগিয়ে  ফেলেছেন।













*ছবি ঋণ, ফজলে রাব্বি

1 comment:

Niamul, usa said...

Darun chobi, darun post