Sunday, December 6, 2009

গ্রামীন ফোন: চোর বানাবার কারখানা!

আমরা হঠাৎ হঠাৎ জেগে উঠে বলি, এতো চোর-চোট্টা কেন চারপাশে! কিন্তু এই চোর বানাবার গাছ আমরাই লাগাই, সযতনে পানি দেই। আর্শিবাদ করি, ফুলো, ফালো...।

হানিফ সংকেতের মত সেলিব্রেটি মানুষরা যখন চৌর্যবৃত্তিকে শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে যান তখন আমরা ভীষন আমোদিত হই, আমোদে গা দোলাই, মাথা দোলাই। হানিফ সংকেতের মত মানুষরা আমাদের অজান্তেই শেখান শর্টকাটের রাস্তা। এখান থেকেই ডলি সায়ন্তনি শেখেন, কেমন করে একবেলা ভাত খাইয়ে, ১০০ টাকা ধরিয়ে কাঙ্গালিনি সুফিয়ার কাছ থেকে গান চুরি করতে হয়। মাহমুদুজ্জামান বাবু শেখেন কেমন করে অতুল বাবুর গান নিজের বলে চালিয়ে দিতে হয়।

গ্রামীন ফোনের একটা বিজ্ঞাপন দেখাচ্ছে নিয়ম করে। বাবা তার সন্তানকে (প্রায় ল্যাদা বাচ্চা) ওস্তাদের কাছে নিয়ে আসেন গান শেখাবার জন্য। কাতর হয়ে বলেন, 'আপনার কার্বন কপি বানিয়ে দিন'।
ওস্তাদ বলেন, 'রেখে যা'।
বাবা রেখে যান।

সেই শিশুটির বেসুরো গলা দিয়ে সুর বের হয় না। শিশুটির বয়োবৃদ্ধি হয়। কিন্তু হায়, সুর আর বের হয় না। ওস্তাদ ক্রমশ বুড়া হতে থাকেন। শিষ্যকে শেখাবার ধকল সামলাতে না-পেরে অবশেষে পরকালে যাত্রা করেন। শিশুটির, আজকের ইয়া ধামড়া যুবকের গলা সেই বেসুরোই থেকে যায়। মেজাজ খারাপ করে ওস্তাদ নিরুপায় হয়ে ছবি থেকে বের হয়ে শিষ্যকে চাঁটি মারেন।

চমৎকার একটা বিজ্ঞাপন। অসাধারণ নির্মাণ, আঁজলা ভরে সাধুবাদ জানাই। কিন্তু সাধুবাদ জানানো শেষ হলেই এদের হালকা চাবকানো প্রয়োজন। হালকা বললাম এ কারণে নির্মাণে মুন্সিয়ানার ছাপের মুগ্ধতা আছে বলে। এরপর হচ্ছে সেই কুৎসিত, ক্ষমার অযোগ্য দৃশ্য! সেই গাতক নামের ঘাতক(!) মোবাইল চেপে বলে, 'গান কপি করা এতো সোজা, প্যাপ...প্যাপ'।

ফোন কোম্পানি বোঝাতে চাচ্ছে, কারও ওয়েলকাম টিউন পছন্দ হলে প্যাপ প্যাপ করে বোতাম চাপলেই তার গানটা কপি হয়ে যাবে। বেশ-বেশ! কিন্তু ওস্তাদজীর কাছে গান শেখার সঙ্গে এটা জুড়ে দিয়ে কি বোঝানো হলো? ওস্তাদজী পরলোক থেকে হ্যাবলার মতো মাথা দুলিয়ে আবার বলেনও, 'এখন গান কপি করা এতো সোজা'!
মানে কী! গোটা বিজ্ঞাপন জুড়ে কি বোঝানো হলো? কষ্ট করে কিছু শেখার প্রয়োজন নাই, কপি-নকল করে নিলেই হয়? শর্টকাট রাস্তা, যেটা আমরা বাস্তব জীবনে দেখছি। মোদ্দা কথা, অন্যের কষ্টার্জিত সম্পদ ছিনিয়ে নাও।

*ভাল কথা, এই যে প্যাপ প্যাপ করে গান কপি করা হলো এটা কি ফ্রি? নাকি এর জন্য টাকা গুনতে হবে? টাকা গুনতে হলে, এইবার 'হালকা চাবকানো' এখান থেকে হালকা শব্দটা বাদ দিতে হবে কারণ বিজ্ঞাপনে কোথাও এটা হয়নি এই 'প্যাককান্ডটা' গান কপি করলে গ্রাহককে আর্থিক ক্ষতির সম্মুখিন হতে হবে।