Sunday, May 24, 2009

তালেবানদের কী দোষ?

তালেবানদের নিয়ে আমরা খামাখাই কালির অপচয়, হালের কী-বোর্ড নিয়ে ধস্তাধস্তি করি! হুদাহুদি!
দেশে এমন ঘটনা অতীতে আমরা পড়েছি, এখনও পড়ি, ভবিষ্যতেও পড়ব। ইনশাল্লাহ।

'বাংলা হবে আফগান' এই শ্লোগান যারা দেয় এরা আস্ত নির্বোধ। বাংলা আফগান হবে কেন? বাংলা তো আফগান হয়েই আছে। আমি তো বলব, ছাড়িয়ে গেছে।

দাউদকান্দিতে এক মেয়েকে ৩৯টি দোররা মারা হয়েছে। আমি নিশ্চিত না, দোররা মারার কথা কী ৩৯, না ১০০? ১০০ হয়ে থাকলে এটা অনুচিত হয়েছে। কেবল ৩৯টা মেরেই ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

যাক গে, এখন এইসব খবর আমাদের তেমন বিচলিত করে না। বিচলিত হচ্ছি অন্য কারণে। ওসি সাহেবের বক্তব্য নিয়ে আমার কিছু কথা আছে।
দাউদকান্দি থানার ওসি সাহেব বলেছেন (ইনাদের নাকি এখন প্রথম শ্রেণীর মর্যাদা দেয়া হবে), "বিষয়টি পুলিশের জানা ছিল না। কেউ অভিযোগ করলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে"। (আব্দুর রহমার ঢালী, প্রথম আলো, ২৪.০৫.০৯)

পুলিশের জানা ছিল না! না-জানলে কী আর করা। আসলে আমরা সবাই ভুল রোলে অভিনয় করছি। এই সাংবাদিকের হওয়া প্রয়োজন ছিল পুলিশের কর্মকর্তা অথচ বেচারা হলো সাংবাদিক। কী আর করা, এইই আল্লার দুনিয়ার বিচার!

বেশ, যা হোক। কেউ যদি অস্ত্র নিয়ে (সেটা মেটাল না চামড়ার সেই তর্কে যাচ্ছি না) প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ায়, কাউকে আহত করে, অপদস্ত করে, আর কেউ যদি অভিযোগ না করে, তাহলে দেখছি আইনের কোন সমস্যা নাই। বাহ, বেশ তো। আমিও ভাবছি, কোন একটা অস্ত্র নিয়ে বেরিয়ে পড়ব। যাকে সামনে পাব তাকেই আল্লাহু আকবর। এবং আমি অবশ্য এও লক্ষ রাখব, অভিযোগ করার জন্য যেন সংশ্লিষ্ট কেউ বেঁচে না থাকে।