Monday, March 9, 2009

মুবারকবাদ-নিন্দাবাদ

 
ক্ষমতায় থাককালিন কবি এরশাদ সাহেবের কবিতা নামের 'বিষয়গুলো' রাষ্ট্রীয় খরচে অনুবাদ ও মুদ্রিত করে বাংলাদেশ দূতাবাসগুলো মাধ্যমে প্রচার করা হয়েছিল। ইংরাজি, ডয়েস, জাপান, আরবি, ইতালি, ফ্রান্স প্রভৃতি ভাষায় সেগুলো অনূদিত হয়েছিল।
প্রকাশক ছিলেন, রওশন এরশাদ, স্কাইভিউ, নিউসেন পাড়া, রংপুর।

ড. হুমায়ুন আজাদের (ঈর্ষা-ঈর্ষা) মতে, 'রবীন্দ্রনাথের পর সম্ভবত এরশাদের লেখাই বেশি ভাষায় অনূদিত হয়েছে।
তার কবিতা নামের এইসব আবর্জনার প্রশংসা শুরু করলেন কতিপয় দালাল- কবি আল মাহমুদ, সৈয়দ আলী আহসান, ফজল শাহাবুদ্দিন প্রমুখ। পরবর্তীতে এদেরকে নিয়ে এরশাদ কবিতা কেন্দ্র গঠন করে লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে দু-বার বিদেশ থেকে কবি ভাড়া করে এনে এশীয় কবিতা উৎসবের আয়োজন করেন।
আরও কতিপয় দালালদের তোষামদে তিনি গীতিকার বনে যান। তথ্য অধিদপ্তর থেকে এইসব গান ও কবিতা নিয়ে, 'O My Mother Land' নামে দ্বিভাষিক একটি প্রমাণ্যচিত্রও নির্মাণ করা হয়েছিল।

এই বিখ্যাত কবির কবিতা সাপ্তাহিক বিচিত্রা নিয়ম করে এই কবির কবিতা ফি-হপ্তায় ছাপাতই। '৯০ সালের বিচিত্রায় এই কবির একটা কবিতার কয়েক লাইন তুলে দিচ্ছি:
"অনেক আক্ষেপ করে তুমি লিখেছো
তুমি কি পার না আমাকে নিয়ে লিখতে?
কাছে পেতে হবে এমন তো কোন কথা নেই।"

এই কবি কেবল কবিতা লিখেই ক্ষান্ত দেননি, এইবার তিন তিনটে আসন থেকে নির্বাচন করে তিনটাতেই বিজয়ী হয়েছেন, তাও একটা ঢাকা থেকে (ঢাকার ভোটারদের সালাম)।
এই মানুষগুলো আবার নিজেদেরকে শিক্ষিত বলে দাবী করেন! এই দেশ গণতন্ত্রের জন্য আদর্শই বটে! 

এই কবিকে, "কনক প্রদীপ জ্বালো"-এর এই কনকপুরুষকে অভিনন্দন, লাল সালাম। মুবারকবাদ।

..................................

এই কবিরা কেউ এইবার নির্বাচন করেননি (সত্যি সত্যি গুণ দাদা নির্বাচন করেছিলেন একদা, কুমির মার্কায়। কুমিরটার ছবি দেখতে অবশ্য টিকটিকি-টিকটিকি লাগছিল)। এঁরা কেবল দুর্বোধ্যসব কবিতা লিখে গেছেন, আগামাথা বোঝা ভার!

"...
সব শালা কবি হবে; পিপড়ে গোঁ ধরেছে, উড়বেই;
বন থেকে দাঁতাল শুয়োর রাজাসনে বসবেই;"
(মোহাম্মদ রফিক/ খোলা কবিতা)

'...
তোর হাতে রক্ত, পায়ে কুষ্ট, কন্ঠে নালী ঘা-
আল্লার দোহাই লাগে, তুই নেমে যা, নেমে যা।"
নির্মলেন্দু গুণ/ দূর হ দু:শাসন)

"...
গুলিবিদ্ধ শহর করছে অশ্রুপাত অবিরত,
কেননা মিলন নেই। দিন দুপুরেই নরকের
শিকারী কুকুর তার বুকে বসিয়েছে দাঁত...।"
(শামসুর রাহমান/ মিলনের মুখ)

"...
তোমাকে চায় না এই মানচিত্র, জাতীয় পতাকা
তুমি চলে যাও, দেশ ছেড়ে চলে যাও।"
(মহাদেব সাহা/ বাংলাদেশ চায় না তোমাকে)

"...
আজো আমি বাতাসে লাশের গন্ধ পাই,
আজো আমি মাটিতে মৃত্যুর নগ্ননৃত্য দেখি,"
(রুদ্র মুহম্মদ শহিদুল্লাহ/ বাতাসের লাশের গন্ধ)

এইসব অখ্যাত(!) কবিদের নিন্দাবাদ।

*বিখ্যাত মহা কবির স্কেচ: আলী মাহমেদ
**অখ্যাত কবিদের স্কেচ করার সময় পাওয়া যায়নি বলে দু:খ প্রকাশ।